আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

আ.লীগের আশ্রয়ে ১২ বিতর্কিত

news-image
ক্যাসিনোকান্ড, টেন্ডার নিয়ন্ত্রণ, মাদক কারবার, সরকারি ও ব্যক্তির জমি দখল, চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন অপকর্মের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ থাকলেও ঢাকার আসন্ন দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে পুনরায় দল থেকে সমর্থন বাগিয়ে নিয়েছেন অন্তত ১২ জন কাউন্সিলর। যাদের বিরুদ্ধে সরকারের দায়িত্বশীল সংস্থা থেকে অনুসন্ধান চলছে এবং যাদের ব্যাংক হিসাব তলব বা জব্দ করা হয়েছে। ‘দাগি’ এসব কাউন্সিলরের অনেকেরই বিদেশযাত্রায় রয়েছে নিষেধাজ্ঞাও। সরকারের চলমান শুদ্ধি অভিযানের মধ্যে এমন বিতর্কিতদের দলীয় সমর্থন দেওয়ায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন অনেকেই।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সমর্থন পাওয়া বিতর্কিত কাউন্সিলরদের মধ্যে রয়েছেনÑ ২ নম্বর ওয়ার্ডের আনিসুর রহমান, ৫ নম্বরের মো. আশ্রাফুজ্জামান (ফরিদ), ২০ নম্বরের ফরিদ উদ্দিন আহমেদ রতন, ২৬ নম্বরের হাসিবুর রহমান মানিক, ৩৮ নম্বরের আহমদ ইমতিয়াজ মন্নাফী ৫১ নম্বরের হাবিবুর রহমান (হাবু) ও ৫৬ নম্বরের মোহাম্মদ হোসেন। আর ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সমর্থন পাওয়া কাউন্সিলরদের মধ্যে রয়েছেন ৪ নম্বরের জামাল মোস্তফা, ৫ নম্বরের আবদুর রউফ নান্নু, ১৮ নম্বরের জাকির হোসেন বাবুল, ২৮ নম্বরের ফোরকান হোসেন ও ৩০ নম্বরের আবুল হাসেম (হাসু)।

আনিসুর রহমান : ডিএসসিসির ২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আনিসুর রহমানের বিরুদ্ধে জমি দখল ও মাদক ব্যবসার বিস্তর অভিযোগ রয়েছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, পূর্ব গোড়ানের ঝিলের পাঁচ-ছয় বিঘা আয়তনের পুরোটাই দখল করে নেন আনিস। সেখানে মাটি ভরাট করে প্লট বানিয়ে তা বিক্রি করেন। আনিসের বর্তমান বাড়ি দক্ষিণ গোড়ানের ৪১১/এ নম্বর হোল্ডিংয়ের জমিও দখল করা। ওই জমিতে আটতলা অ্যাপার্টমেন্ট তৈরি করে বেশির ভাগ ফ্ল্যাট বিক্রিও করা হয়েছে। পূর্ব গোড়ান ৮ নম্বর গলির মাথায় শাহি মসজিদের সামনে আরেকটি জমি দখলের অভিযোগও রয়েছে আনিসের বিরুদ্ধে। স্থানীয়রা আরও জানান, নতুন কোনো ভবন কেউ করতে চাইলে সেখানে এ কাউন্সিলরের লোকজন গিয়ে মোটা অঙ্কের টাকা দাবি করে। আবার এলাকায় কেউ ফ্ল্যাট বাড়ি তৈরি করতে গেলেই তার লোকজন গিয়ে কাজ বন্ধ করে দেয়। তারা সেখানে ইট-বালু-রড-সিমেন্ট সরবরাহের কাজ দিতে হয়। এ ছাড়া এই কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে খিলগাঁও-গোড়ান এলাকায় অভিনব কায়দায় মাদক বিক্রির অভিযোগও বেশ পুরনো।

আশ্রাফুজ্জামান ফরিদ : ডিএসসিসির ৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আশ্রাফুজ্জামান ফরিদের বিরুদ্ধে স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগের শেষ নেই। তাদের অভিযোগ, জমি দখল, ভাগ্নে শাওনকে দিয়ে মাদক কারবার নিয়ন্ত্রণ, সরকারি জমিতে বাজার বসিয়ে অর্থ বাণিজ্য, কমিউিনিটি সার্ভিসের নামে স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছ থেকে টাকা আদায়, বিএনপির স্থানীয় নেতাদের মাধ্যমে ডিশ ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ, সিএনজি স্টেশন থেকে মাসিক চাঁদা আদায় করেন তিনি। সবুজবাগে কোনো নতুন ভবন করতে হলেও কাউন্সিলর ফরিদকে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণে টাকা দিতে হয়।

ফরিদ উদ্দিন আহমেদ রতন : র‌্যাবের হাতে আটক ক্যাসিনোকা-ে আলোচিত যুবলীগ নেতা খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া, জি কে শামীম ও ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটের সঙ্গে ব্যবসায়িক সম্পর্ক থাকা ডিএসসিসির ২০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ফরিদ উদ্দিন আহমেদ রতনও পেয়েছেন দলীয় সমর্থন। তার অবৈধ সম্পদের তদন্ত করছে দুর্নীতি দমন কমিশন। অভিযোগ আছে, শূন্য থেকে হাজার কোটি টাকার মালিক হওয়া রতন নগর ভবন, গণপূর্ত অধিদপ্তর, বিদ্যুৎ ভবনে ঠিকাদারি নিয়ন্ত্রণ করেন। কাউন্সিলর হয়ে গুলিস্তান এলাকায় ও মুক্তিযোদ্ধা ক্রীড়াচক্রে প্রভাব বিস্তার শুরু করেন। গুলিস্তানের ফুটপাত ও মুক্তিযোদ্ধা ক্রাড়ীচক্রে ক্যাসিনো থেকে বিপুল অর্থ আয় করেন তিনি। নিজস্ব দেহরক্ষী নিয়ে নগর ভবনে প্রভাব বিস্তার করা এ কাউন্সিলর ডিএসসিসির একটি অনুষ্ঠানে দুই কর্মকর্তাকে নিজে মারধর করে আলোচনায় আসেন। সেগুনবাগিচায় ফুটপাত দখল করে দোকান ও ডিএসসিসির একটি পাঁচতলা ভবনের তিনটি ফ্লোর দখল করে রাখার অভিযোগও আছে তার বিরুদ্ধে। এসব অভিযোগ অস্বীকার করে রতন বলেন, তিনি নিয়ম মেনে বিদ্যুৎ ভবনে ব্যবসা করেন। আর কোনো অনিয়মের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ সঠিক নয়।

হাসিবুর রহমান মানিক : হাসিবুর রহমান মানিক ডিএসসিসির ২৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নির্বাচিত হওয়ার পর নানা বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন। নিজ দপ্তর নগর ভবন থেকে বেনামে ঠিকাদারিতে অংশ নেওয়া ও ঢাকেশ^রী মন্দিরসংলগ্ন মার্কেটে দোকান বরাদ্দ নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। এ ছাড়া আজিমপুরের বিভিন্ন লেগুনা ও ব্যাটারিচালিত পরিবহন থেকে অর্থ আদায়ের অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। অভিযোগ আছে, মানিক বর্তমানে যে বাড়িতে থাকেন, সেটি সেলিম নামে এক ব্যক্তির কাছ থেকে চুক্তিতে নিয়ে তা আর ফেরত দেননি তিনি। যদিও এসব অভিযোগ অস্বীকার করেন মানিক।

আহমদ ইমতিয়াজ মন্নাফী : আসন্ন নির্বাচনে ডিএসসিসির ৩৮ নম্বর ওয়ার্ড থেকে সরকারদলীয় সমর্থন পেয়েছেন আহমদ ইমতিয়াজ মন্নাফী। তরুণ এ প্রার্থীর বিরুদ্ধে রাজধানীর কাপ্তানবাজারের মুরগিপট্টি এলাকা নিয়ন্ত্রণ করে সেখান থেকে অর্থ আদায়ের অভিযোগ রয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, মনির নামের এক কর্মীকে দিয়ে দৈনিক কাপ্তানবাজার শুধু মুরগিপট্টি থেকেই দেড় থেকে দুই লাখ টাকা আদায় করেন তিনি। এ টাকা আদায় নিয়ে একাধিকবার স্থানীয় সরকারদলীয় লোকজনের সঙ্গে বিরোধে জড়িয়ে পড়েন তিনি। এ ছাড়া ময়লা সংগ্রহের নামে বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান থেকে টাকা আদায় করেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

হাবিবুর রহমান হাবু : ডিএসসিসির ৫১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হাবিবুর রহমান হাবুর বিরুদ্ধে বিস্তর অভিযোগ রয়েছে। ২০১৬ সালে সায়েদাবাদে অবৈধ ট্রাকস্ট্যান্ড উচ্ছেদে বাধাদান ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে লাঞ্ছিত করার অভিযোগে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করেছিল স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। এই কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে পরিবহনে চাঁদাবাজি ও সায়েদাবাদ-শ্যামপুর এলাকায় দখলের অভিযোগ দীর্ঘদিনের।

মোহাম্মদ হোসেন : ডিএসসিসির ৫৬ নম্বর ওয়ার্ডে কাউন্সিলর মোহাম্মদ হোসেনের বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষের জমি, খাসজমি, নদীর তীর, খেয়াঘাট, ট্রলারঘাট, রাস্তা, ফুটপাত দখলসহ নানা অপকর্মে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, ডিশ-ইন্টারনেটের ব্যবসাও নিয়ন্ত্রণ করেন তিনি। এ ছাড়া চাঁদাবাজি ও দখলবাজির মাধ্যমে পাওয়া অর্থের বড় অংশ তার। এলাকার ব্যাটারিচালিত রিকশা ও অটোরিকশা থেকে মাসিকহারে অর্থ নেন হোসেন।

জামাল মোস্তফা : ডিএনসিসির কাউন্সিলর মো. জামাল মোস্তফা নিজে সরাসরি অপরাধে না জড়ালেও ছেলে রফিকুল ইসলাম রুবেলকে দিয়ে নানা অপকর্ম করানোর অভিযোগ রয়েছে। কাফরুল এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিত এই কাউন্সিলরের ছেলে রফিকুল ইসলাম রুবেলকে ইয়াবাসহ পুলিশ গ্রেপ্তার করেছিল। পুলিশের মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনার আগে এক গোয়েন্দা প্রতিবেদনে উঠে আসা ৪৫ জন শীর্ষ মাদক কারবারির মধ্যে জামাল মোস্তফার ছেলের নাম ১২ নম্বরে রয়েছে। জামাল মোস্তফার বিরুদ্ধেও রয়েছে সরকারি জমি দখলের অভিযোগ। তবে জামাল মোস্তফা এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

আব্দুর রউফ নান্নু : ডিএনসিসির ৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আব্দুর রউফ নান্নুর বিরুদ্ধে রাস্তা দখল করে মার্কেট নির্মাণ ও মাদক ব্যবসায় মদদ দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, এ কাউন্সিলর কয়েক বছর আগে মিরপুর ১১ নম্বর এলাকায় সড়কের একটি বড় অংশ দখল করে অর্ধশত দোকান বানিয়েছেন। এ স্থানটি বর্তমানে ‘নান্নু মার্কেট’ নামে পরিচিত। সরকারের শুদ্ধি অভিযান শুরু হওয়ার পর বেশ কিছু দিন তিনি আত্মগোপনে ছিলেন বলেও জানা যায়।

জাকির হোসেন বাবুল : ডিএনসিসির ১৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর জাকির হোসেন বাবুলের বিরুদ্ধে রয়েছে নানা অভিযোগ। বনানী এলাকায় ক্যাসিনো ব্যবসার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে চলমান শুদ্ধি অভিযানে বেশ কিছু দিন আত্মগোপনে ছিলেন এই কাউন্সিলর। অভিযোগ আছে, বাবুল ১৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হলেও গুলশান, বারিধারা, শাহজাদপুর, নতুনবাজার, নর্দা ও কালাচাঁদপুরসহ আশপাশের এলাকার নিয়ন্ত্রণ তার হাতে। এসব এলাকার জমিদখল, চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজিসহ বিভিন্ন ধরনের অনৈতিক কর্মকা- চলে বাবুলের নির্দেশেই। জমি দখল ছাড়াও কড়াইল বস্তিতে অবৈধভাবে গ্যাসসংযোগ দিয়ে বিপুল অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে।

ফোরকান হোসেন : ডিএনসিসির ২৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. ফোরকান হোসেনের বিরুদ্ধে আগারগাঁও-শেরেবাংলা নগর এলাকায় ফুটপাত দখল ও মাদক ব্যবসায়ীদের আশ্রয় দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। কাউন্সিলর নির্বাচিত হওয়ার পর আপন ভাই ও নিজস্ব লোকজন দিয়ে আগারগাঁও আইডিবি ভবন থেকে পাবলিক সার্ভিস কমিশনের সামনের রাস্তা পর্যন্ত সড়ক ও ফুটপাতে দোকান বসিয়ে চাঁদাবাজির অভিযোগ ওঠে তার বিরুদ্ধে। ডিএনসিসির একটি সভায় সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তা তার বিরুদ্ধে মাদক ব্যবসা ও ফুটপাত দখলের অভিযোগ করেন। কিন্তু সেখানে উপস্থিত ফোরকান তা প্রত্যাখ্যান করে পুলিশের বিরুদ্ধে পাল্টা অভিযোগ ছুড়ে দেন।

আবুল হাসেম হাসু : নানা অপকর্মে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে ডিএনসিসির ৩০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আবুল হাসেম হাসুর বিরুদ্ধে। রাজধানী মোহাম্মদপুরের আদাবর এলাকায় নিজস্ব লোকজন দিয়ে জমি দখল ও ফুটপাতে চাঁদাবাজির অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। শ্যামলী আদাবর এলাকাবাসীর কাছে ‘বড় দখলদার’ হিসেবেই পরিচিত। এ কাউন্সিলরের ভাই কাসুকে নিয়েও রয়েছে বিস্তর অভিযোগ। ‘হাসু-কাসু’ বাহিনী নামে পরিচিত এই বাহিনীর বিরুদ্ধে স্থানীয়দের জমি দখলের অভিযোগ রয়েছে। নানা অনিয়মের অভিযোগে ২০১২ সালে আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কৃত হাসুর বিরুদ্ধে আদাবর থানা ছাত্রলীগের সভাপতি রিয়াজ মাহমুদকে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করার অভিযোগ রয়েছে। এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে হত্যাচেষ্টার মামলাও হয়েছে।

এ জাতীয় আরও খবর

৭ মার্চকে ঐতিহাসিক জাতীয় দিবস ঘোষণা করতে হাইকোর্টের রায়

সিরাজগঞ্জে বাস-ট্রাক সংঘর্ষে নিহত ২

সাভারে নারী শ্রমিককে গণধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ২

সাভারে ফুট ওভারব্রীজে বিদ্যুতস্পৃষ্টে শিক্ষার্থী দগ্ধ প্রতিবাদে বিক্ষোভ

যোশোদা জীবন দেবনাথের বিজিনেস সামিট এ‍্যাওয়ার্ড গ্রহন

সিরাজগঞ্জে সিলিন্ডারের আগুনে এক পরিবারের দগ্ধ ৬ জন

সাভারে আধিপত্ত্য বিস্তার নিয়ে আওয়ামলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, আহত পাঁচ

সাভারে পুলিশ কর্মকর্তার অত্যাচারে ব্যবসায়ী বাড়ি ছাড়া

সিরাজগঞ্জে পুত্রবধূকে নিয়ে পালিয়ে যাওয়া সেই শ্বশুর কারাগারে

সাভারে নোটিশ ঝুলিয়ে তিন পোশাক কারখানা বন্ধ ঘোষনা করলো কর্র্তৃপক্ষ

যন্ত্রনা সইতে না পেরে গায়ে আগুন লাগিয়ে বৃদ্ধের আত্মহত্যা

সিরাজগঞ্জে ইয়াবাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক