বুধবার, ০৩ অক্টোবর ২০১৮, ০৩:০৪ অপরাহ্ন

লালমোহনে পৌর মেয়র হলেন আ’লীগের তুহিন

উৎসবমুখর পরিবেশে লালমোহন পৌরসভার নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। ভোটারদের স্বতস্ফূর্ত অংশগ্রহণে পৌর পিতার আসনে দ্বিতীয়বারের মতো বসছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী এমদাদুল ইসলাম তুহিন। দীর্ঘ ৯ বছর পর ভোলার লালমোহন পৌর সভায় প্রথম বারের মতো ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট গ্রহণ পদ্ধত্বিতে ভোট দিয়েছেন ভোটাররা।

সোমবার সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত একটানা ভোট গ্রহণ সম্পন্ন হয়। ইভিএম ত্রুটির কারণে ১২ ওয়ার্ডের মধ্যে ২টি ওয়ার্ডের ফলাফল ঘোষণা বিলম্বিত হয়। রাত ৮টা নাগাদ ওই দুই কেন্দ্রের ফলাফল ঘোষণা করা হয়।

বাকি ১২ কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ প্রার্থী নৌকা প্রতীকের এমদাদুল ইসলাম তুহিন পেয়েছেন ১১ হাজার ৩৬৯ ভোট। অপরদিকে বিএনপির ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী সোহেল আজীজ শাহিন পেয়েছেন ২ হাজার ৩০৪ ভোট।

নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে ৪৭ জন এবং সংরক্ষতি নারী কাউন্সিলর পদে ১৩ প্রার্থী মাঠে নেমেছেন। এর মধ্যে ১নং ওয়ার্ডে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন ফরহাদ হোসেন মেহের। ২নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন হেলাল উদ্দিন হাওলাদার, ৩নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর নির্বাচিত হযেছেন অহিদউল্যাহ মাষ্টার, ৪নং ওয়ার্ডে রায়হান মাসুম, ৫নং ওয়ার্ডে ঈমাম হোসেন হাওলাদার, ৬নং ওয়ার্ডে জহিরুল ইসলাম মাসুদ, ৭নং ওয়ার্ডে জাহেদুল ইসলাম নবীন, ৮নং ওয়ার্ডে সাইফুল কবীর, ৯নং ওয়ার্ডে হিরণ হায়দার, ১০ নং ওয়ার্ডে সিরাজ মেম্বার, ১১ নং ওয়ার্ডে এহসানুল হক ফরিদ, ১২ নং ওয়ার্ডে জসিম ফরাজী।সংরক্ষিত ১,২ ও ৩ নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন জান্নাত বেগম, ৪, ৫ ও ৬নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন লুৎফা বেগম।

এদিকে দীর্ঘদিন পরে ভোট হওয়ায় ভোটারদের মধ্যেও বিরাজ করেছে উৎসবের আমেজ। পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে কেন্দ্রে এসেছেন ভোটাররা। নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। এছাড়াও বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ও র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) সদস্যরা মোতায়েন করা হয়েছে।

মোট ভোটার সংখ্যা ১৯ হাজার ১শ জন। যাদের মধ্যে পুরুষ নয় হাজার ৭০৩ জন এবং নারী নয় হাজার ৯৯৭ জন। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন সর্বমোট ৬২ প্রার্থী, যাদের মধ্যে মেয়র পদে দু’জন।