আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

আদালতের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা চট্টগ্রাম দাপিয়ে বেড়াচ্ছে অবৈধ ব্যাটারি রিকশা প্রায়ই ঘটছে দুর্ঘটনা * রাজস্ব পাচ্ছে না সরকার * পুলিশ-প্রভাবশালীদের পকেটে যাচ্ছে চাঁদার টাকা

চট্টগ্রাম নগরীর অলিগলি দাবড়িয়ে বেড়াচ্ছে ১৫ হাজার ব্যাটারিচালিত রিকশা। অবৈধ এসব যানের কারণে প্রতিনিয়ত ঘটছে ছোট-বড় দুর্ঘটনা। অপচয় হচ্ছে বিদ্যুৎ। অভিযোগ রয়েছে, উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকলেও পুলিশের নিষ্ক্রিয়তায় এসব রিকশা চলাচল করছে নির্বিঘ্নে। যদিও পুলিশ বলছে, নগরীর প্রধান সড়কে এ ধরনের রিকশা দেখলেই আটক করা হচ্ছে। তবে অলিগলিতে ট্রাফিক পুলিশ না থাকার সুযোগ কাজে লাগিয়ে কিছু অবৈধ রিকশা চলছে। এ রিকশার বিপরীতে সরকার বা সিটি করপোরেশন কোনো ধরনের রাজস্ব পাচ্ছে না। বিভিন্ন এলাকায় পুলিশ ও প্রভাবশালীরা যোগসাজশে এসব রিকশা থেকে আদায় করছে নির্দিষ্ট হারে চাঁদা বা মাসোহারা।
এদিকে অবৈধ রিকশা বন্ধের দাবিতে আন্দোলনে নেমেছে অটোরিকশা-অটোটেম্পো শ্রমিক ইউনিয়ন। কঠোর আন্দোলনে নামার হুমকিও দিয়েছেন তারা।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ২০১৮ সালে চট্টগ্রাম মহানগরীতে ব্যাটারিচালিত রিকশা চলাচল বন্ধ করার জন্য দুটি সংগঠনের পক্ষ থেকে রিট পিটিশন করা হয়েছিল। অটোরিকশার পক্ষে চট্টগ্রাম অটোরিকশা-অটোটেম্পো শ্রমিক ইউনিয়নের পক্ষে সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশিদ ও প্যাডেলচালিত রিকশার পক্ষে মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সভাপতি সিদ্দিক মিয়া এই রিট করেছিলেন। রিটের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্ট ব্যাটারিচালিত রিকশা চলাচল বন্ধের নির্দেশনা দেন। পরবর্তী সময়ে এই রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করে ব্যাটারিচালিত রিকশা মালিক সমিতি। আপিল বিভাগের সাত সদস্যের বেঞ্চ হাইকোর্টের আদেশ বহাল রাখেন। এরপর চট্টগ্রামে ব্যাটারিচালিত রিকশার বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নেয় সিটি করপোরেশন ও পুলিশ প্রশাসন। ব্যাপক অভিযানের মুখে এ ধরনের রিকশা চলাচল এক পর্যায়ে বন্ধ হয়ে যায়। তবে তা বেশিদিন স্থায়ী হয়নি। অভিযানে ভাটা পড়লে ফের নগরীতে ব্যাটারিচালিত রিকশা চলাচল শুরু হয়। প্রথমদিকে প্রধান সড়কের সংযোগ সড়ক ও অলিগলিতে নামলেও এখন প্রধান সড়কেও দেখা যাচ্ছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, প্রতিটি ব্যাটারিচালিত রিকশায় চারটি ব্যাটারি ও একটি শক্তিশালী মোটর থাকে। স্থানীয় বিভিন্ন মোটর গ্যারেজে রিকশা তৈরি করেন অনভিজ্ঞ মিস্ত্রিরা, যাদের মোটর সম্পর্কে তেমন জ্ঞান নেই। তারা প্রায় সময়ই ছোট আকারের তিন চাকার যানটিতে উচ্চক্ষমতার মোটর লাগিয়ে দেন। একদিকে গতি বেশি, অন্যদিকে ব্রেক দুর্বল হওয়ার কারণে রিকশাগুলো নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন না চালকরা। প্রথমদিকে প্যাডেল রিকশাতেই মোটর ও ব্যাটারি সংযোজন করা হতো। সাম্প্রতিক সময়ে বড় আকারের ধাতব রিকশা তৈরির প্রবণতা শুরু হয়েছে, যা অত্যন্ত বিপজ্জনক। একেকটি রিকশার ব্যাটারি চার্জ দিতে দিনে ৭০ টাকার বিদ্যুৎ খরচ হয়। বিভিন্ন গ্যারেজে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ নিয়ে রিকশার ব্যাটারি চার্জ দেওয়া হচ্ছে। তাই বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি) এ থেকে কার্যত কোনো অর্থ পায় না। আবার বাণিজ্যিক কাজে ব্যবহার হলেও অনেক চালক বিভিন্ন বস্তি ঘরের আবাসিক সংযোগ থেকে চার্জ দিয়ে থাকেন। চট্টগ্রাম অটোরিকশা-অটোটেম্পো শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ যুগান্তরকে বলেন, ‘স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও হাইকোর্ট ব্যাটারিচালিত অবৈধ রিকশা বন্ধের নির্দেশ দিলেও তা প্রশাসনের কিছু অসাধু কর্মকর্তার কারণে মানা হচ্ছে না, যা সরাসরি আদালত অবমাননার শামিল। তিনি বলেন, অবৈধ রিকশা পরিচালনাকারীরা প্রতিদিন একেকটি রিকশা থেকে ১৩০ টাকা করে আদায় করেন। এই টাকা বিভিন্ন হাত ঘুরে স্থানীয় কিছু রাজনৈতিক প্রভাবশালী ব্যক্তি ও গুটিকয়েক পুলিশ সদস্যের পকেটে যায়। এ কারণে অবৈধ রিকশা বন্ধ হচ্ছে না।

অবৈধ রিকশা চলাচলের সঙ্গে পুলিশের কেউ জড়িত নেই দাবি করে সিএমপির উপকমিশনার (ট্রাফিক উত্তর) মো. আলী হোসেন বলেন, আমাদের প্রধান সড়কগুলোর যানবাহন নিয়ন্ত্রণে ব্যস্ত থাকতে হয়। জনবল সংকটের কারণে অলিগলিতে সব সময় নজরদারি করা যায় না। এরপরও কোনো এলাকা থেকে অভিযোগ পেলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিই। আগে আমরা রিকশা আটক করতে পারতাম। এখন জরিমানা নিয়ে ছেড়ে দিতে হয়। পরদিন সেই রিকশা আবার রাস্তায় নামে। অবৈধ রিকশা মালিকদের সঙ্গে কোনো পুলিশ সদস্যের যোগসাজশের অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ জাতীয় আরও খবর

মুরাদ হাসানের অনুষ্ঠানের বিতর্কিত উপস্থাপক কে এই নাহিদ রায়ান্স?

মুরাদকে গ্রেফতারের দাবিতে কুশপুত্তলিকা দাহ

অন্য এলাকায় হালকাসহ ভারী বৃষ্টি হতে পারে সিলেট-চট্টগ্রামে

যা আছে মুরাদ হাসানের পদত্যাগপত্রে

ভারতকে এস-৪০০ সরবরাহ শুরু করেছে রাশিয়া

ভৈরবে ২ খুনের মামলার আসামি সাফায়েত নৌকার প্রার্থী!

সোনারগাঁও প্রেসক্লাবের নির্বাচন ১৮ ডিসেম্বর

‘পদত্যাগপত্র লিখে মুরাদ হাসানের স্বাক্ষরের জন্য পাঠানো হয়েছে’

‘দেশে করোনা টিকা উৎপাদন শিগগিরই’

ওমিক্রনের সংক্রমণ ক্ষমতা বেশি হলেও মারণ ক্ষমতা কম: ফাউসি

কোম্পানিতে আসতে চান না বাস মালিকরা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ইউপি নির্বাচন মাদক মামলার আসামিও পেলেন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন