আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

এবার ভৈরবে হাজত থেকে আসামি পলানোর অভিযোগ

news-image

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে পুলিশের গাফিলতির কারণে থানা হাজতখানা থেকে এক আসামি পালিয়ে যাওয়ার অভিযোগ ওঠেছে। পালিয়ে যাওয়া আসামির নাম সাইদুর রহমান। আদালতের গ্রেপ্তারি পরোয়ানা মূলে সাইদুরকে গত মঙ্গলবার বিকেলে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরে তাকে থানা হাজতে রাখার পর পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে সে পালিয়ে যায়। এই ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। যদিও পুলিশ বলছে, গ্রেপ্তারের পর আসামি সাইদুর অসুস্থ হওয়ায় তাকে তার মায়ের জিম্মায় ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

স্থানীয়রা এবং পুলিশ জানায়, উপজেলার শিমুলকান্দি গ্রামের সাইদুরের বিরুদ্ধে মাদকের সিআর মামলায় (ওয়ারেন্ট) গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে আদালত। ফলে আদালতের নির্দেশে মঙ্গলবার (৯ মার্চ) বিকেলে ভৈরব থানার উপ-পরিদর্শক আব্দুস সালাম এলাকা থেকে সাইদুরকে গ্রেপ্তার করে থানা হাজতে রাখে। এসময় ডিউটি অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন থানার আরেক উপ-পরিদর্শক মো. ফারুক মিয়া। পরে তাকে রাত ৯টার দিকে রাতে খাবার দেয়া হয়। এরপর সাইদুর পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে হাজতখানার গ্রিল বেয়ে পালিয়ে যায়। এই ঘটনায় দু’দিন পেরিয়ে গেলেও তাকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। ফলে এ ঘটনায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। বিষয়টিকে পুলিশের গাফলতি এবং দায়িত্বে অবহেলা হিসেবে দেখছে সচেতন নাগরিকরা।

স্থানীয়রা আরও জানায়, সাইদুরকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে নিয়ে যাওয়ার পর থেকে তার আর কোনও সন্ধান মিলছে না। তাছাড়া ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে পুলিশ চেষ্টা করছে বলেও দাবি এলাকাবাসীর। এছাড়াও আজ বৃহস্পতিবার সকাল থেকে সাইদুরের মা ফাতেমা বেগমকে বাড়িতে দেখছে না বলেও জানায় তারা।

এ বিষয়ে ভৈরব থানার উপ-পরিদর্শক আব্দুস সালামের মুঠোফোনে সাইদুর প্রসঙ্গে জানতে চাইলে প্রথমে স্বীকার না করে থানায় গিয়ে তার সঙ্গে দেখা করতে বলেন। পরে এক পর্যায়ে তিনি সাইদুরকে গ্রেপ্তার করার কথা স্বীকার করেন। এছাড়াও বিস্তারিত জানতে ওসির সঙ্গে যোগাযোগ করার কথা বলেন।

ভৈরব থানার ওসি মো. শাহিন জানান, সাইদুর হাজতখানা থেকে পালিয়ে যায়নি। অসুস্থ হওয়ায় তাকে বসিয়ে রাখা হয় এবং পরে তাকে চিকিৎসা দিয়ে তার মায়ের জিম্মায় ছেড়ে দেয়া হয়েছে।