আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ, প্রক্টরসহআহত ১৫ ককটেল বিস্ফোরণ, থানায় মামলা, সাধারন সম্পাদক রাকিবসহ আটক ২

news-image

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি :কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে কমপক্ষে ১৫জন আহত হয়েছে। হামলার অভিযোগ ইবির মেইন গেট বন্ধ করে দিয়ে পদ বঞ্চিত অংশের নেতা-কর্মিরা প্রায় ৪০ মিনিট কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ সমাবেশ করে। এ ঘটনায় পুলিশ ইবি ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিবসহ ২জনকে আটক করেছে।
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শিরা জানান,‘ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম পশাল ও সাধারন সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব তার সহযোগিদের নিয়ে ক্যাম্পাসে প্রবেশ করে। এ সময় দলীয় টেন্ডে যাওয়ার চেষ্টা করলে পদ বঞ্চিত মিজানুর রহমান লালন-ফয়সাল আরাফাত গ্র“পের বিক্ষুব্ধ নেতা-কর্মিরা তাদের ধাওয়া দেয়। এ সময় দুইগ্রপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে সাধারন সম্পাদক রাকিবসহ দুই পক্ষের কমপক্ষে ১৫জন নেতা-কর্মি আহত হয়। আহতদের কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালসহ বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। পরে হামলার অভিযোগ এনে লালন-আরাফাত গ্র“পের কর্মিরা ক্যাম্পাসের মূল ফটক বন্ধ করে দিয়ে কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ মহাসড়ক প্রায় ঘন্টাব্যাপী অবরোধ করে বিক্ষোভ সমাবেশ করে তারা। হামলার জন্য পলাশ ও রাকিবকে দায়ী করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি করেন।
বিক্ষুব্ধ অংশের নেতা মিজানুর রহমান লালন বলেন,‘পলাশ ও রাকিব বহিরাগত সন্ত্রাসীদের নিয়ে আমাদের নেতা-কর্মিদের ওপর হামলা করে। তারা ককটেল হামলা করলে আমাদের গ্র“পের কমপক্ষে ১০জন আহত হয়েছে। তাদের বিচারের দাবি জানাচ্ছি।
তবে হামলার জন্য পলাশ ও রাবিক প্রতিপক্ষের কর্মিদের ওপর দোষ চাপান। এ ঘটনায় ক্যাম্পাসে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। অতিরিক্তি পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এদিকে ক্যম্পাসে ককটেল বিস্ফোরণসহ হামলার অভিযোগ এনে ছাত্রলীগ সভাপতি পলাশ ও সাধারন সম্পাদক রাকিবসহ ১১জনের নাম উলে­খ করে ইবি থানায় এজাহার দাখিল করেছে বিক্ষুব্ধ অংশের কর্মি হানিফ হোসাইন। পুলিশ রাবিকসহ ২জনকে আটক করেছে।
ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর আনিচুর রহমান বলেন, সংঘর্ষের ঘটনায় তিনিসহ অনেকেই আহত হয়েছে। এখন শান্ত আছে ক্যাম্পাস।