আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

গাছ চুরি করায় দণ্ডপ্রাপ্ত, কাপ্তাই উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সাময়িক বরখাস্ত

news-image

রাঙামাটির কাপ্তাই উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যানের পদ থেকে মো. নাছির উদ্দেনকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে।

গত বুধবার (২৬ আগস্ট) স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে কাপ্তাই উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) কার্যালয়ে আদেশপত্র এসে পৌঁছায়। বহিষ্কৃত নাছির কাপ্তাই উপজেলা যুবলীগের সভাপতিও।

কাপ্তাই উপজলো নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মুনতাসির জাহান স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে কাপ্তাই উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যানের পদ থেকে মো. নাছির উদ্দেনকে সাময়িকভাবে বরখাস্তের চিঠি পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয় সরকার বিভাগের উপসচিব মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম স্বাক্ষরিত আদেশে উল্লেখ করা হয়- যেহেতু তার বিরুদ্ধে আদালতে ফৌজদারি মামলায় তিন বছরের সাজার একটি আদেশ হয়েছে, সে কারণে তাকে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় সাময়কিভাবে বরখাস্ত করেছে। বন বিভাগের প্রায় ৩০ লাখ টাকার বনজ সম্পদ আত্মসাতের একটি মামলায় জেল খেটেছেন তিনি।

এতে আরো উল্লেখ করা হয়, যেহেতু চুরি মামলার দণ্ডপ্রাপ্ত একজন আসামি উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান পদে আসীন থাকলে পরিষদের প্রতি জনসাধারণের শ্রদ্ধা ও আস্থা বিঘ্নিত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে যা পরিষদ বা রাষ্ট্রের স্বার্থের হানিকর এবং জনস্বার্থের পরিপন্থী।

প্রসঙ্গত, এ বছরের গত ২৮ জানুয়ারি বন বিভাগের মামলায় রাঙামাটির কাপ্তাই উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি নাসির উদ্দীনকে তিন বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন রাঙামাটির আদালত। এ ছাড়া ৩০ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো তিন মাসের কারাদণ্ডের নির্দেশ দেন আদালত। একই মামলার আরেক আসামি রাহুল তংচংগ্যা ওরফে বাবুল মেম্বারকে দেড় বছর সশ্রম কারাদণ্ড, ১০ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে ২ মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। রাঙামাটি চিফ জুডিশিয়াল আদালত-২ এর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সবুজ পাল আসামিদের উপস্থিতিতে এ রায় দেন।

রাঙামাটি জেলা যুবলীগের নুর মোহাম্মদ কাজল জানিয়েছেন, নাছির আমাদের উপজেলা কমিটির সভাপতি। তার বিরুদ্ধে একটি মামলার রায় হয়েছে এবং তিনি উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিয়ে আসে এবং আদেশের বিরুদ্ধে আপিলও করেছেন। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হলে তখন আমরা সাংগঠনিক পদক্ষেপ নিতে পারব।

এ জাতীয় আরও খবর