আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

চরের বালু তুলে বিক্রি ঝুঁকিতে গ্রাম, সড়ক

news-image

রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার মধুপুর ইউনিয়নে যমুনেশ্বরী নদীতে জেগে ওঠা চর থেকে অবৈধভাবে বালু ও মাটি তুলে বিক্রি করার অভিযোগ উঠেছে প্রভাবশালীদের বিরুদ্ধে। তোলা বালু শতাধিক ট্রাক্টর দিয়ে পরিবহন করায় ঝুঁকির মুখে পড়েছে ইউনিয়নের পাকা সড়কসহ নাওপাড়া গ্রাম।

গত সোমবার মধুপুরে গিয়ে দেখা গেছে, স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) ও ভূমি কার্যালয়ের ৫০০ গজ দূরে রামরামপুর নাওপাড়া গ্রামঘেঁষে যমুনেশ্বরী নদীতে জেগে উঠেছে চর, আর এই চর থেকে শতাধিক ট্রাক্টরে বালু ও মাটি তুলে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে বিভিন্ন এলাকায়। কেউ খাসজমিতে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে বালু তুলছেন, কেউ নদীর পাড়ের মাটি বিক্রি করছেন। এই প্রতিবেদকের উপস্থিতি টের পেয়ে সটকে পড়েন বালু উত্তোলনকারীরা।
জানা গেছে, বালু উত্তোলনে পৃথকভাবে নেতৃত্ব দিচ্ছেন স্থানীয় আফজাল ও মোয়াজ্জেমসহ কয়েকজন। ট্রাক্টরপ্রতি বালু ও মাটি বিক্রি করছেন ২০০ থেকে ৩০০ টাকা দরে।

সেখানে প্রতিদিন পাঁচ শতাধিক ট্রাকে মাটি ও বালু বিক্রি করা হচ্ছে। এসব মাটি ও বালু যাচ্ছে রামরামপুর মৌজার ২৫টি ইটভাটাসহ বিভিন্ন স্থানে।

ট্রাক্টরশ্রমিক শাহ আলম বলেন, এখানে মাটি ও বালু বিক্রি করছেন অনেকেই। নেতৃত্ব দিচ্ছেন চার-পাঁচজন।

স্থানীয় বাসিন্দা রেখা বেগম বলেন, ‘বাড়ির ওপর দিয়ে পিঁপড়ার মতো লাইন ধরেছে ট্রাক্টর। ট্রাক্টরের শব্দে অতিষ্ঠ হয়ে গেছি। ধুলা-বালু ঢুকে বাড়ির অবস্থা একেবারেই খারাপ করে দিচ্ছে। বাড়িঘর মুছতে মুছতে কাহিল হয়ে পড়ছি; কিন্তু দেখার কেউ নেই।’

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক ব্যক্তি বলেন, ‘বালু ব্যবসায়ীরা এলাকার প্রভাবশালী। তাঁরা অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে হাজার হাজার টাকা কামাই করছেন; কিন্তু হুমকির মুখে পড়েছে আমাদের গ্রামসহ সড়ক। চেয়ারম্যান-মেম্বারকে একাধিকার অভিযোগ করেও কোনো কাজ হয়নি।’

অভিযোগের বিষয়ে জানতে আফজাল ও মোয়াজ্জেমের বাড়িতে গেলে তাঁদের পাওয়া যায়নি।

স্থানীয় ইউপি সদস্য শাহিনুর আলম বলেন, ‘এলাকার বালু ব্যবসায়ীরা প্রভাবশালী হলেও তাঁরা কিন্তু আইনের ঊর্ধ্বে নন। আমি নিজে থানায় গিয়ে পুলিশকে কয়েকবার বলেছি, কাজ হয়নি। এ কারণে এখন আর বালু নিয়ে কোনো কথা বলি না।’

অবাধে ট্রাক্টর চলাচলের কারণে সড়কের অবস্থা করুণ উল্লেখ করে মধুপুর ইউপির চেয়ারম্যান নুর আলম ভুট্টু বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে পুলিশ প্রশাসনকে বলতে বলতে এখন অনেকটাই অসহায় হয়ে গেছি। তাঁরা ব্যবস্থা নেন না। আমার ইউনিয়নে সব চেয়ে বেশি ইটভাটা রয়েছে। এসব ইটভাটায় ট্রাক্টরের অবাধ চলাচলে মানুষ এমনিতেই অতিষ্ঠ।’

এ বিষয়ে বদরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাবিবুর রহমান বলেন, ‘ভাই, আমি জরুরি বৈঠকে আছি। পরে কথা হবে।’

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবু সাঈদ বলেন, ‘নদী থেকে বালু উত্তোলন অবৈধ। ওই এলাকা থেকে বালু উত্তোলনের বিষয়ে কেউ আমাকে অবগত করেননি।

বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখা হবে।’

এ জাতীয় আরও খবর

বগুড়া নাব্য সংকটে যমুনা

সরকারি খালের মাটি যায় চেয়ারম্যানের ইটভাটায়

শ্রীনগরে প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে পদ্মা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু আসছে

লোহাগাড়ায় বালু উত্তোলনের গর্তে ভাসছিল হাতিশাবকের লাশ

বালু ব্যবসায়ী কাউছার হত্যা: বাবা-ছেলে গ্রেপ্তার

দুর্ভিক্ষের কবলে যেন পড়তে না হয়, সতর্ক হওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর সচিবদের সঙ্গে বৈঠক

হাসপাতাল থেকে নিখোঁজ নবজাতককে উদ্ধার, নারীসহ গ্রেপ্তার ৪

জঙ্গিদের বিষয়ে সতর্ক করলেন প্রধানমন্ত্রী

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে জেলা প্রশাসক ড. ফারুক আহাম্মদকে পদোন্নতিজনিত বিদায়

বাঞ্ছারামপুর বার্তার সম্পাদককে হুমকীর প্রতিবাদে মানববন্ধন

অসময়ে ভাঙনে চিন্তার ভাঁজ ৫০ লক্ষাধিক মানুষের কপালে

অতীতের মতো বন্দুকের নল ঠেকিয়ে ক্ষমতা দখলের সুযোগ নেই: শিক্ষামন্ত্রী