আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

জামায়াত নেতাকে সংবর্ধনা দিলেন মুক্তিযোদ্ধা আ’লীগ নেতা!

ইউনিয়ন জামায়াতের আমীরকে সংবর্ধনা দিয়ে সমালোচনায় পড়েছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতা ও ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা অশোক কুমার ঘোষ প্রণো। ঘটনাটি ঘটেছে পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলার দিলপাশার ইউনিয়নে।

মঙ্গলবার স্থানীয় জামায়াতের আমীর ফজলুর রহমানকে ওই সংবর্ধনা দেয়া হয়।

ফজলুর রহমান পেশায় ইউনিয়নের পাঁচ বেতুয়ান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। অপরদিকে অশোক কুমার ঘোষ প্রণো একজন ভাতাভোগী মুক্তিযোদ্ধা। তবে ২০১৭ সাল থেকে তার ভাতা বন্ধ রয়েছে।

এ বিষয়ে চেয়ারম্যান অশোক কুমার ঘোষ বলেন, ফজলুর রহমান ১০ বছর আগে জামায়াত করতেন। বর্তমানে ইউনিয়নে জামায়াতের কোনো কমিটিতে নেই। প্রধান শিক্ষক হিসেবে তাকে সংবর্ধনা দেওয়া দোষের কিছু মনে করি না।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ২০১৪ সালে দেশের সব বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণ করা হলে ফজলুর রহমান দল থেকে অব্যাহতি নেন। এরপরও এলাকায় জামায়াতকে সুসংগঠিত করার কাজ চালিয়ে যান তিনি। সুবিধা আদায়ে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে সখ্যতা গড়ে তোলেন। একপর্যায়ে এ মাসের প্রথম দিকে তিনি চাকরি থেকে অবসরে যান।

এ উপলক্ষে মঙ্গলবার বিকালে বিদ্যালয়ে তাকে সংবর্ধনা দেন ইউপি চেয়ারম্যান অশোক কুমার ঘোষ। এ সময় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুস সাত্তার উপস্থিত ছিলেন।

আগামী ইউপি নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াতের ভোটারদের সহানুভূতি পেতে মুক্তিযোদ্ধা হয়েও অশোক কুমার ঘোষ জামায়াত নেতাকে সংবর্ধনা দিয়েছেন বলে মনে করছেন এলাকাবাসী।

দিলপাশার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শহীদুল ইসলাম বলেন, সামনে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। তাই সবাইকে নিজের পক্ষে নিতে জামায়াত-বিএনপি নিয়ে আর ভেদাভেদ দেখছেন না অশোক কুমার ঘোষ।