আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

জিয়ার শাসনামলে সশস্ত্রবাহিনীর অসংখ্য কর্মকর্তা হত্যার বিচার হওয়া উচিত: প্রধানমন্ত্রী

news-image

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জিয়াউর রহমানের শাসনামলে সামরিক ক্যুর অজুহাতে সশস্ত্রবাহিনীর অসংখ্য কর্মকর্তা হত্যার বিচারের ব্যবস্থা গ্রহণ করা উচিত উল্লেখ করে এজন্য জনমত সৃষ্টির প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এই বিষয়টা নিয়ে যখন দাবি উঠেছে তখন এটা নিয়ে নিশ্চয়ই ব্যবস্থা নেয়া উচিত বলে আমি মনে করি। এর জন্য ভালো জনমতও সৃষ্টি হওয়া দরকার। কিভাবে মানুষগুলোকে সে (জিয়াউর রহমান) হত্যা করে গেল।’

সোমবার বিকেল ৪টায় গণভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। সদ্যসমাপ্ত নিউইয়র্ক সফর এবং জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৬তম অধিবেশনে যোগদান নিয়ে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

শেখ হাসিনা বলেন, ৭৫ এর পর এই বাংলাদেশে বার বার ক্যু হয়েছে এবং এই ক্যুর নামে শুধু এয়ারফোর্সের অফিসার, সৈনিক বা কর্মচারিই নয় সেনাবাহিনীরও বহুজনকে হত্য করা হয়েছে।

তিনি সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা যদি জেলখানাগুলোতে খোঁজ করেন যে, কোন জেলে কতজনকে ফাঁসি দেয়া হয়েছে। তাহলে দেখবেন এরকম হাজার হাজার মানুষকে ফাঁসি দেয়া হয়েছে। তাদের পরিবারগুলো লাশ তো পায়ই নি, এরা যে গুম হয়ে গেল বা হারিয়ে গেল সে জন্য কারো কোন জবাবদিহি কখনও হয়নি।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রি ওবায়দুল কাদের, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেনসহ সরকার এবং পিএমওর উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তাবৃন্দ এবং সিনিয়র সাংবাদিকবৃন্দ গণভবনে উপস্থিত ছিলেন। অন্যদিকে সাংবাদিকদের একটি অংশ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে উপস্থিত ছিলেন যারা ভিডিও কনফারেন্সে প্রধানমন্ত্রীকে প্রশ্ন করেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সংবাদ সম্মেলনটি সঞ্চালনা করেন।

প্রধানমন্ত্রী সেনাশাসক জিয়াউর রহমানের বিরুদ্ধে সেনা ও বিমানবাহিনীর কর্মকর্তা হত্যার অভিযোগ সম্পর্কে বলেন, এটা একটা আশার কথা যে এত বছর পর সবারই এই চেতনাটা এসেছে। কিন্তু আমার প্রশ্ন এতকাল সবাই কেন এটা ভুলে থাকলো।

তিনি বলেন, জিয়াউর রহমান তার ক্ষমতাকে নিস্কন্টক করবার জন্য এই ঘটনাগুলো ঘটিয়েছে, এটা তো জানা কথা। শুধু সামরিক বাহিনী নয় আমাদের আওয়ামী লীগের বহু নেতা-কর্মীকে হত্যা ও গুম করেছে।

তিনি তৎকালীন মিডিয়া এবং বিএনপির দিকে সমালোচনার তীর ছুঁড়ে দিয়ে জিয়া প্রসঙ্গে বলেন, তাকে এমন একটা ফেরেশতার মতো বানিয়ে দেয়া হয়ে গেল এবং শেষকালে স্বাধীনতার ঘোষকও বানিয়ে ফেলা হলো। সেটা নিয়ে তেমন কেউ কেন কথা বলেনি সেটা আমার প্রশ্ন। কারণ, আমার বাবা-মা-ভাই তাদের হত্যার বিচার চাওয়ার অধিকারও আমার ছিল না। আমরাও তো তাদের লাশ দেখতে পারিনি। কিন্তু আমি সরকারে আসতে পেরেছি বলেই এই হত্যার (জাতির পিতা) বিচার করেছি। আবার জিয়াউর রহমান হত্যার বিচারও কিন্তু বিএনপি কখনো করেনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, মিউটিনির বিচার করে যে ১১ জন সামরিক অফিসারকে ফাঁসি দিল সেটাও কিন্তু খুব অন্যায়ভাবে। কারণ, এদের অনেকে জানতই না কিন্তু রাতারাতি একটা ক্যামেরা ট্রায়াল করে ফাঁসি দিয়ে দিল।

তারা তখন প্রতিবাদ করেছিলেন উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, আমরা তখন এটার প্রতিবাদ করেছিলাম, তা তদন্ত হওয়া দরকার। এই মিউটিনিটি কেন হলো, কারা করল, কারা জড়িত এবং কাদের ফাঁসি দিচ্ছে। সেটা কিন্তু করেনি। আবার জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় বার বার যে ক্যু হয়েছে এবং বিভিন্ন কারাগারে যে ফাঁসি হয়েছে সে হিসেবটা কিন্তু কেউ নেয়নি। এখন যেটা বের হচ্ছে। আমার মনে হয় সেটা আরো বের হওয়া দরকার। আরো তথ্য নিয়ে আসা দরকার এই পরিবারগুলোর।

তিনি বলেন, এই পরিবারগুলোতে জীবনে কেউ কিছু পায়নি। তাদের কেউ কিছু জিজ্ঞেসও করেনি। পরিবারগুলো কি অবস্থায় রয়েছে তাও দেখেনি।

তিনি বলেন, দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য বাংলাদেশে এ ধরনের ঘটনা বার বার ঘটনোর চেষ্টা করা হয়েছে। ৭৭ সালে ক্যুর নামে বিমানবাহিনীর ৫৬২ জন অফিসারসহ আরো বহুলোক এই সময় হত্যাকান্ডের স্বীকার হয়েছে। এরই মাঝে আরো কয়েকটা ক্যু হয় এবং সেটা নিয়ে প্রায় ২ হাজারের কাছাকাছি বিমান এবং সামরিক বাহিনীর অফিসারদের মারা হয়।

এ জাতীয় আরও খবর