আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

দেখিয়ে দিতে হবে ভোট!

news-image

জেলা পরিষদে ভোটগ্রহণ আজ। নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা ভোটার। হাতেগোনা ভোটারদের পক্ষে আনতে চলে সবরকম চেষ্টা। অভিযোগ উঠেছে, বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলার ৩২ জন ভোটারকে শনিবার রাতে একরকম জোর করেই সমুদ্র সৈকত কুয়াকাটায় নিয়ে গেছেন এক সদস্য প্রার্থী। আদরমাখা শাসনে সেখানে আটকে রাখা হয়েছে তাদের। আজ সকালে বরিশালে এনে বাধ্য করা হবে নির্দিষ্ট প্রার্থীর পক্ষে ভোট দিতে। অভিযুক্ত প্রার্থী অবশ্য এই অভিযোগ স্বীকার করেননি। যে কেউ তার ইচ্ছেমতো বেড়াতে যেতে পারেন বলে দাবি তার।

কেন্দ্রে আজ ভোটারদের ‘দেখিয়ে ভোট দিতে হবে’ বলে হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে পটুয়াখালীতে। সেখানকার আওয়ামী লীগ প্রার্থীর বিরুদ্ধে এই অভিযোগ করেছেন স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হাফিজুর রহমান। অভিযোগ অস্বীকার করে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান জেলা পরিষদ প্রশাসক খলিলুর রহমান মোহন বলেছেন, নির্বাচনে পরাজয় নিশ্চিত জেনেই এসব অপপ্রচার চালানো হচ্ছে।

এছাড়া ভোটে জিততে মহিলা ভোটারদের শাড়ি-গয়না আর পুরুষ ভোটারদের নগদ অর্থ দেওয়ারও অভিযোগ উঠেছে বিভিন্ন এলাকায়। বরগুনার বেতাগীতে এরকম লেনদেনের অভিযোগের সত্যতা পাওয়ার পর এক প্রার্থীকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। শনিবার রাতে বরিশালে খবর ছড়িয়ে পড়ে যে, বাবুগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের ৩২ জন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিকে বিভিন্ন কৌশলে একত্রিত করার পর অনেকটা জোর করে নিয়ে যাওয়া হয়েছে সমুদ্র সৈকত কুয়াকাটায়। এরা সবাই জেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোটার। পরিচয় গোপন রাখার শর্তে একজন মহিলা ইউপি সদস্যের স্বামী যুগান্তরকে বলেন, ‘শনিবার বিকাল থেকে অনেকটা নিখোঁজ ছিল আমার স্ত্রী। রাতে খবর পাই আরও অনেকের সঙ্গে সে কুয়াকাটা। তার ফোনও বন্ধ ছিল। অন্য একজনের মোবাইল ফোনের মাধ্যমে সে জানায় যে, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সরদার খালেদ হোসেন স্বপন জরুরি প্রয়োজনের কথা বলে তাকে খবর দিয়ে নিয়েছে। এভাবে সবাইকে এক জায়গায় করে কোনো কিছু বুঝতে না দিয়ে নেয়া হয়েছে কুয়াকাটায়। জেলা পরিষদ নির্বাচনে সদস্য পদের প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেনের পক্ষে ভোট দেওয়ার জন্য তাদের এভাবে একত্রিত করে কুয়াকাটায় নিয়ে অনেকটা আটকে রাখা হয়েছে। সোমবার (আজ) সকালে সবাইকে আবার একসঙ্গে এনে কেন্দ্রে নেওয়া হবে জাহাঙ্গীরের পক্ষে ভোট দেওয়ার জন্য।’

একই অভিযোগ করেন আরও কয়েকজন। বাবুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রহমতপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আকতারুজ্জামান মিলন বলেন, ‘৩২ ভোটারকে কৌশলে কুয়াকাটা নিয়ে আটকে রাখার খবর পেয়ে তাৎক্ষণিকভাবে বিষয়টি জেলা প্রশাসককে জানিয়েছি। এটা ঠিক নয়। ভোটার তার ভোট দেবের নিজের ইচ্ছেমতো। তাদের এভাবে কেন দূরে নিয়ে আটকে রাখা হবে।’

বাবুগঞ্জের উপজেলা চেয়ারম্যান কাজী ইমদাদুল হক দুলাল বলেন, ‘মাধবপাশা ইউনিয়নের দুজন সদস্যকেও এভাবে কৌশলে কুয়াকাটা নেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছিল। বিষয়টি বুঝতে পেরে তারা ফাঁদে পা দেননি।’

অভিযোগ অস্বীকার করে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সরদার খালিদ হোসেন স্বপন বলেন, ‘আমার নাম কেন বলা হচ্ছে বুঝতে পারছি না। আমি এসবের কিছুই জানি না। যারা আমার কথা বলছে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেব।’ প্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ‘চেয়ারম্যান-মেম্বাররা তো আর শিশু বাচ্চা নয় যে তাদের নিয়ে আটকে রাখবে। তাও আবার ১-২ জন নয় ৩২ জন। হয়তো তারা কুয়াকাটায় বেড়াতে গেছে। এটা নিয়ে হইচইর কি হলো বুঝতে পারছি না।’ বরিশালের জেলা প্রশাসক জসিমউদ্দিন হায়দার বলেন, ‘কুয়াকাটা যেহেতু আমার এলাকা নয় তাই অভিযোগের বিষয়টি আমি বিভাগীয় কমিশনার স্যারকে জানিয়েছি।’

বরিশালের ৬ জেলার মধ্যে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন হচ্ছে শুধু পটুয়াখালী জেলায়। বাকি ৫ জেলাতেই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা। পটুয়াখালীতে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী বর্তমান জেলা পরিষদ প্রশাসক খলিলুর রহমান মোহনের বিরুদ্ধে লড়াই করছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী যুবলীগ নেতা হাফিজুর রহমান। এই দুজনার মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হওয়ার আভাসও মিলেছে এরইমধ্যে। হাফিজের বিরুদ্ধে ভোট কেনার অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী মোহন।

অপরদিকে হাফিজের অভিযোগ, ‘বিভিন্ন এলাকার ভোটারদের দেখিয়ে ভোট দেওয়ার জন্য চাপ দেওয়া হচ্ছে। বিশেষ করে বাউফল উপজেলার ভোটারদের দেখিয়ে ভোট দিতে বলা হচ্ছে সরাসরি। কেন্দ্রে জেলা পরিষদ প্রশাসকের নির্দিষ্ট লোককে দেখিয়ে চেয়ারম্যান পদে ভোট দিতে হবে, অন্যথায় নির্বাচন শেষে দেখিয়ে দেওয়ার হুমকি দিচ্ছে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর লোকজন।’

এছাড়া ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থীর বিরুদ্ধে ভোটারদের টাকা দিয়ে কেনার অভিযোগও করেন হাফিজ। অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের প্রার্থী খলিলুর রহমান মোহন বলেন, ‘জেলার সিংহভাগ ভোটারই আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী। দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে যাওয়ার মতো মানসিকতা তাদের নেই। এখানে দেখিয়ে ভোট দেওয়ার জন্য হুমকি কিংবা টাকা দিয়ে ভোট কেনার প্রশ্নই আসে না। বরঞ্চ স্বতন্ত্র প্রার্থী জেতার জন্য টাকা দিয়ে ভোট কেনার চেষ্টা করছেন।’

নির্বাচনে ভোট টানতে মোটা অঙ্কের নগদ অর্থ বিতরণসহ নারী ভোটারদের শাড়ি, চুড়ি আর সোনার চেইন দিয়ে ম্যানেজ করারও অভিযোগ উঠছে বিভিন্ন এলাকায়। প্রায় সব প্রার্থীই এই কাজটি করছেন বলে খবর মিলেছে। টাকা দিয়ে ভোট কেনার একটা প্রতিযোগিতা চলছে বিভাগজুড়ে। এ নির্বাচনে যেহেতু সব এলাকাতেই ভোটারের সংখ্যা হাতেগোনা তাই এভাবেই নির্বাচনি বৈতরণী পার হওয়ার চেষ্টা চলছে। বরিশালের বাবুগঞ্জে কয়েকজন মহিলা ভোটারকে সোনার চেইন দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে এক সদস্য প্রার্থীর বিরুদ্ধে। বরগুনার বেতাগীতে বাবুল আহম্মেদ নামের এক প্রার্থী ভোট কিনতে প্রতি ইউনিয়নে দিয়েছেন ১ লাখ ২০ হাজার করে টাকা। এক্ষেত্রে ইউপি সদস্য প্রতি ১০ হাজার টাকা করে দিয়েছেন তিনি। প্রয়োজনে আরও টাকা দেওয়ার কথাও বলেছেন বাবুল। এই সংক্রান্ত একটি অডিও রেকর্ড ভাইরাল হওয়ার পর বিষয়টি নিয়ে অভিযোগ যায় বরগুনার জেলা প্রশাসকের কাছে। অভিযোগের সত্যতা পাওয়ার পর বাবুলকে সতর্ক করার পাশাপাশি ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক।

এ জাতীয় আরও খবর

বগুড়া নাব্য সংকটে যমুনা

সরকারি খালের মাটি যায় চেয়ারম্যানের ইটভাটায়

শ্রীনগরে প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে পদ্মা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু আসছে

লোহাগাড়ায় বালু উত্তোলনের গর্তে ভাসছিল হাতিশাবকের লাশ

বালু ব্যবসায়ী কাউছার হত্যা: বাবা-ছেলে গ্রেপ্তার

দুর্ভিক্ষের কবলে যেন পড়তে না হয়, সতর্ক হওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর সচিবদের সঙ্গে বৈঠক

হাসপাতাল থেকে নিখোঁজ নবজাতককে উদ্ধার, নারীসহ গ্রেপ্তার ৪

জঙ্গিদের বিষয়ে সতর্ক করলেন প্রধানমন্ত্রী

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে জেলা প্রশাসক ড. ফারুক আহাম্মদকে পদোন্নতিজনিত বিদায়

বাঞ্ছারামপুর বার্তার সম্পাদককে হুমকীর প্রতিবাদে মানববন্ধন

অসময়ে ভাঙনে চিন্তার ভাঁজ ৫০ লক্ষাধিক মানুষের কপালে

অতীতের মতো বন্দুকের নল ঠেকিয়ে ক্ষমতা দখলের সুযোগ নেই: শিক্ষামন্ত্রী