আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

দেশকে স্বাধীন করার দিকনির্দেশনা ছিল ৭ মার্চের ভাষণে

news-image

বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ ছিল বাঙালির বিভিন্ন ঐতিহাসিক আন্দোলন সংগ্রামের ভিত্তিমূল। একটি জাতিকে কীভাবে স্বাধীন করতে হবে, কীভাবে অর্থনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিকভাবে স্বাবলম্বী করে গড়ে তুলতে হবে- তার সবকিছুর দিকনির্দেশনা ছিল জাতির পিতার ঐতিহাসিক এ ভাষণে।

রোববার ৭ মার্চ উপলক্ষে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন ববি উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. ছাদেকুল আরেফিন। এ সময় তাৎপর্যপূর্ণ ও সুদূরপ্রসারি চিন্তা-চেতনার এ ভাষণের গুরুত্বকে তরুণ প্রজন্মের কাছে তুলে ধরার আহবান জানান উপাচার্য।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু আজীবন স্বপ্ন দেখেছিলেন একটি ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠার। আর সেই লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু আমৃত্যু সংগ্রাম করে গেছেন। তিনি চেয়েছেন বিশ্বের বুকে বাঙালি জাতি একটি আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠা পাক। আর সেই লক্ষ্যে কাজ করে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নকে বাস্তবে রূপদান করছেন তারই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর দৃঢ়চেতা মনোভাব, সাহসী নেতৃত্ব ও সময়োপযোগী সিদ্ধান্তের কারণে আজ বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে মাথা তুলে দাঁড়িয়েছে।

৭ মার্চ উপলক্ষে সকাল সাড়ে ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে ক্যাম্পাসে স্থাপিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন ববি উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. ছাদেকুল আরেফিন। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন, রেজিস্ট্রার, প্রক্টর, বিভাগীয় প্রধান, শিক্ষক সমিতির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, শিক্ষকমণ্ডলী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।

উপাচার্য মহোদয়ের শ্রদ্ধা নিবেদনের পর বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের আয়োজনে দুপুর ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের জীবনানন্দ দাশ কনফারেন্স হলে বিশেষ আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কলা ও মানবিক অনুষদের ডিন ও রেজিস্ট্রার (অ.দা.) অধ্যাপক ড. মো. মুহসিন উদ্দীন। অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মো. বাহাউদ্দিন গোলাপের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন- ববি শিক্ষক সমিতির সভাপতি মো. আরিফ হোসেন, শিক্ষক সমিতির কার্যনির্বাহী সদস্য জ্যোতির্ময় বিশ্বাস, অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি মো. হুমায়ুন কবীর, সহকারী লাইব্রেরিয়ান মধুসূদন হালদার, অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. রফিকুল ইসলাম সেরনিয়াবাত, স্টোর অফিসার তৌছিক আহমেদ রাহাত, সেকশন অফিসার মো. হাবিবুর রহমান, প্রশাসনিক কর্মকর্তা সাইফা আলম, অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা নুসরাত জাহান, শিক্ষার্থীদের মধ্যে মো. শফিক মুন্সি ও অমিত হাসান রক্তিম, গ্রেড ১১-১৬ কল্যাণ পরিষদের সাবেক সভাপতি মো. নাদিম মল্লিক ও গ্রেড ১৭-২০ কল্যাণ পরিষদের সভাপতি শেখ ফরিদুল ইসলাম।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের সহ-সাধারণ সম্পাদক মো. জসিম উদ্দীন।