আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া: লঞ্চে ধারণক্ষমতার দ্বিগুণ যাত্রী পারাপার

news-image

প্রিয়জনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে দেশের গুরুত্বপূর্ণ দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুট দিয়ে ঘরে ফিরছেন দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার লাখ লাখ মানুষ।

যাত্রীরা বলছেন, সড়ক ও নৌপথে তারা তেমন কোন ভোগান্তি ছাড়াই পারাপার হতে পারছেন।

তবে তাদের অভিযোগ, লঞ্চ, ফেরি,বাসসহ সকল যানবাহনে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হচ্ছে। লঞ্চে ধারণ ক্ষমতার থেকেও দ্বিগুন যাত্রী পরিবহন করা হচ্ছে। এখন বৈশাখ মাস চলছে। যে কোন সময় কালবৈশাখী ঝড় হতে পারে। তাই নৌপথে ঝুঁকি থেকেই যায়।

রোববার সরেজমিন দৌলতদিয়া লঞ্চ ঘাটে দেখা যায়, পাটুরিয়া ঘাট থেকে ছেড়ে আসা প্রায় প্রতিটি লঞ্চ ধারণক্ষমতার চেয়েও দ্বিগুন যাত্রী নিয়ে দৌলতদিয়া ঘাটে আসছে। তবে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে চলাচলকারী অধিকাংশ লঞ্চ অনেক পুরোনো।যাত্রীর নিরাপত্তায় প্রতিটি লঞ্চে জীবন রক্ষাকারী বিভিন্ন সরঞ্জাম থাকার কথা থাকলেও অনেক লঞ্চে তা পর্যাপ্ত সংখ্যক নেই।

এসব সমস্যার পরও অজ্ঞাত কারণে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে অনেকটা উদাসীন। যাত্রী নিরাপত্তার কথা না ভেবে একশ্রেণির অসাধু মালিকেরা হাজার হাজার যাত্রী পারাপার করে লাভবান হচ্ছেন।

পাটুরিয়া ঘাটে থেকে ধারণক্ষমতার দ্বিগুন যাত্রী দৌলতদিয়া ঘাটে আসা কয়েকটি লঞ্চের মাষ্টারকে অতিরিক্ত যাত্রী পারাপারের ব্যাপারে জিঙ্গেস করলে তারা বলেন, কাউন্টার থেকে টিকেট কেটে কতৃপক্ষ যতগুলো যাত্রী উঠাবে,আমরা তত যাত্রী নিয়েই আসবো। এখানে আমাদের কিছুই করার নেই।

ঘাট সূত্রে আরো জানা যায়, দৌলতদিয়া- পাটুরিয়া নৌপথে অধিকাংশ লঞ্চেই ১২০-১৪০ জন যাত্রীর ধারণ ক্ষমতা রয়েছে। কিন্তু সেই নিয়মের তোয়াক্কা না করেই দ্বিগুন যাত্রী ও ঝুকি নিয়ে পদ্মা নদী পাড়ি দিচ্ছে।

পাটুরিয়া ঘাট থেকে আসা লঞ্চের যাত্রী রাবেয়া সুলতানা, মনির হোসেন,লিয়াকত আলী সহ অনেকেই বলেন, তারা ঢাকা থেকে পাটুরিয়া পর্যন্ত সড়কে তেমন কোন ভোগান্তি ছাড়াই আসতে পেরেছেন। তবে ঘাট এলাকায় মহাসড়কে গাড়ীর সিরিয়াল থাকায় লঞ্চঘাট পর্যন্ত আসতে অনেকটা সময় লেগেছে । কিন্তু লঞ্চে স্বাভাবিকের চেয়ে অতিরিক্ত যাত্রী বহন করা হচ্ছে। নদী যদিও শান্ত কিন্তু মাঝ নদীতে ভয় লাগে। কতৃপক্ষের উচিত অতিরিক্ত যাত্রী বহনের বিষয়ে কঠোর পদক্ষেপ নেয়া।

বিআইডব্লিউটিএ’র দৌলতদিয়া ঘাটের ট্রাফিক পরিদর্শক মো. আফতাব হোসেন বলেন, দৌলতদিয়া -পাটুরিয়া রুটে ২৩ টি লঞ্চ চলাচল করছে। প্রতিটি লঞ্চের ফিটনেস সনদ রয়েছে। সুরক্ষা সামগ্রীও ঠিকঠাক রয়েছে।

তিনি বলেন, ঈদের আগে এ রুটে ঘরমুখো মানুষের অত্যাধিক চাপ রয়েছে। চাপ সামলাতে সংশ্লিষ্ট সকলের হিমশিম খেতে হচ্ছে।লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহন ও যে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঠেকাতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কঠোর অবস্হানে রয়েছে।

প্রশাসনের পক্ষ হতে সচেতনতামূলক মাইকিং করা হচ্ছে। আমরাও যাত্রীদের সচেতনতা বাড়াতে কাজ করছি। লঞ্চ চালকদের কড়া নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যাতে কোন অতিরিক্ত যাত্রী লঞ্চে বহন না করে।

এ জাতীয় আরও খবর

দৌলতদিয়ায় ৭ ফেরিঘাটের ৪টিই বিকল, যানবাহনের দীর্ঘ সারি

পানির নিচে পন্টুন, ঘাটে যানবাহনের দীর্ঘ সারি

ছাত্রদল করা সন্তানের জনক হলেন থানা ছাত্রলীগের সহসভাপতি

যমুনা নদীতে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন

চাঁদপুরের ডিসিকে বদলি, তিন জেলায় নতুন ডিসি

গাফফার চৌধুরী আর নেই

প্রধান শিক্ষিকার বিরুদ্ধে ভূমি দখলের পাঁয়তারার অভিযোগ

কুমিল্লার মানবজমিন প্রতিনিধিসহ সারাদেশের সাংবাদিকদের উপর হামলার প্রতিবাদে সোচ্চার রূপগঞ্জ প্রেসক্লাব ॥ প্রতিবাদ সভা, মানববন্ধন-বিক্ষোভ মিছিল

চাকরির নামে টাকা আত্মসাৎ গ্রেপ্তার ২

মহাসড়কে গাছ ফেলে ডাকাতি করতো তারা, গ্রেফতার ৬

বনের ভেতর সিসা তৈরির কারখানা, হুমকির মুখে পরিবেশ

বাঘাবাড়ী নৌবন্দর খুঁড়িয়ে চলছে