আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

নওগাঁয় ভোট গণনাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে আহত ৩৫, পুলিশের দুই গাড়িতে অগ্নিসংযোগ

news-image

নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলার ঘোষনগর ও নজিপুর ইউনিয়নের তিনটি কেন্দ্রে ভোট গণনাকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে অন্তত ৩৫ জন আহত হয়েছেন। এ সময় পুলিশের দুটি গাড়িতে আগুন দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

উপজেলার ঘোষনগর ইউনিয়নের ঘোষনগর উচ্চবিদ্যালয়, নজিপুর ইউনিয়নের রঘুনাথপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কৃষ্ণপুর ইউনিয়নের পানিওড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে সংঘর্ষের এ ঘটনা ঘটে।

আহতদের মধ্যে একজন প্রিসাইডিং অফিসার রয়েছেন। ২৭ জন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও বাকিরা রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

আহতদের মধ্যে সাতজনের নাম পাওয়া গেছে। তারা হলেন- বাবলুর রশিদ আজাদুল, বজলুর রশিদ, বেলাল হোসেন, সাদিয়া, মোস্তাকিন ও সাদেকুল ইসলাম। বাকিদের নাম জানা যায়নি।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে ঘোষনগর উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট গণনা না করে উপজেলা সদরে ব্যালট বাক্স নিয়ে যাওয়ার পথে কমলাবাড়ি এলাকায় স্থানীয়রা বাধা দিলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়।

এ সময় পুলিশের ছোড়া রাবার বুলেটে দুই পুলিশ সদস্যসহ অন্তত ১৫ জন আহত হন। এ সময় উত্তেজিত জনতা পুলিশের গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেন।

এদিকে নজিপুর ইউনিয়নের রঘুনাথপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট গণনা করে ব্যালট বাক্স উপজেলা সদরে নিয়ে যাওয়ার পথে গগণপুর এলাকায় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন।

নওগাঁর পুলিশ সুপার আব্দুল মান্নান মিয়া জানান, পত্নীতলার চারটি কেন্দ্রে ভোট গণনাকে কেন্দ্র করে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে। ভোট গণনার পর ব্যালট বাক্স নিয়ে উপজেলা সদরে নেওয়ার পথে কিছু মানুষ বাধা দিলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। তবে কতজন আহত হয়েছেন তা এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। আহতদের মধ্যে একজন প্রিসাইডিং অফিসারসহ কয়েকজন পুলিশ সদস্যও রয়েছেন।