আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

নদ থেকে বালু উত্তোলন বন্ধ করে দিলেন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা

প্রশাসনের অনুমতি না নিয়ে সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার মনাই নদে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে বালু তুলছিলেন স্থানীয় এক ঠিকাদারের লোকজন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) নির্দেশে এই বালু উত্তোলন বন্ধ করে দিয়েছেন নদের পাশেই একটি বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা। আজ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

উপজেলার পাইকুরাটি ইউনিয়নের বাদশাগঞ্জ সরকারি উচ্চবিদ্যালয়টি মনাই নদের তীর ঘেঁষে অবস্থিত। বিদ্যালয়টির খানিকটা পশ্চিম উত্তর দিকে বাদশাগঞ্জ পাবলিক বালিকা উচ্চবিদ্যালয়। এই বিদ্যালয়ে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের অধীনে একটি ছাত্রাবাস নির্মাণের কাজ পেয়েছেন মেসার্স আমেনা এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী ঠিকাদার মাঈন ‍উদ্দিন। ছাত্রাবাস নির্মাণের জন্য ভবনের ভিটায় কিছু স্থানে বালু ফেলে ভরাট করার উদ্দেশ্যে ওই ঠিকাদারের লোকজন দুই দিন আগে মনাই নদে একটি ড্রেজার মেশিন বসান।
আজ বৃহস্পতিবার সকাল আটটার দিকে নদ থেকে বালু উত্তোলন শুরু হয়। সকাল ১০টার দিকে বাদশাগঞ্জ সরকারি উচ্চবিদ্যালয়টির ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আলাল উদ্দিন বিদ্যালয়ে এসে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলনের শব্দ শুনতে পান। এ সময় নদের পাড়ে গিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের দৃশ্য দেখতে পেয়ে তিনি ইউএনওকে মুঠোফোনে বিষয়টি জানান। পরে ইউএনওর নির্দেশে আলাল উদ্দিনের নেতৃত্বে আরও ৫–৬ জন শিক্ষক ও ২০-২৫ জন শিক্ষার্থী সমবেত হয়ে বালু উত্তোলনের কাজটি বন্ধ করে দেন।

মাঈন উদ্দিন বলেন, শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর থেকে দরপত্রের মাধ্যমে বাদশাগঞ্জ বালিকা উচ্চবিদ্যালয়টির ছাত্রাবাস নির্মাণের কাজ পেয়েছেন তিনি। যেখানে ভবন নির্মাণ করা হবে, সেই স্থান একটু নিচু। তাই স্থানটি ভরাট করার জন্য মনাই নদে একটি ড্রেজার মেশিন বসিয়েছেন।
প্রশাসনের অনুমতি নিয়েছেন কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে ওই ঠিকাদার বলেন, ‘আমি এ নিয়ে ইউএনও স্যারের সঙ্গে কথা বলেছি বিদ্যালয়ের অনেকটা দূর থেকে মাটি উত্তোলন করা হচ্ছিল। মনে হয় এই দুটি বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মধ্যে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব রয়েছে। তাই বালু উত্তোলনকাজটি শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা মিলে বন্ধ করে দিয়েছেন। নদ থেকে যেভাবে বালু উত্তোলন করলে বাদশাগঞ্জ সরকারি উচ্চবিদ্যালয়টির কোনোরকম ক্ষতিগ্রস্ত না হয়, সেভাবেই বালু উত্তোলন করা হবে।’

বাদশাগঞ্জ সরকারি উচ্চবিদ্যালয়টির ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আলাল উদ্দিন বলেন, ঠিকাদার মাঈন উদ্দিন মনাই নদে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে নদ থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছিলেন। এভাবে বালু উত্তোলন করলে তাঁদের বিদ্যালয়ের ভবনগুলো ভবিষ্যতে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিতে পারে। এ জন্য শিক্ষক–শিক্ষার্থীদের নিয়ে বালু উত্তোলনের কাজটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

ইউএনও মুনতাসির হাসান প্রথম আলোকে বলেন, মনাই নদ থেকে বালু উত্তোলন নিয়ে ওই ঠিকাদার তাঁর সঙ্গে কোনো কথা বলেননি। প্রশাসনেরও কোনো অনুমতি নেননি। নদে ড্রেজার বসিয়ে যেনতেনভাবে বালু উত্তোলন সম্পূর্ণভাবে বেআইনি। এ ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ জাতীয় আরও খবর

দৌলতদিয়ায় ৭ ফেরিঘাটের ৪টিই বিকল, যানবাহনের দীর্ঘ সারি

পানির নিচে পন্টুন, ঘাটে যানবাহনের দীর্ঘ সারি

ছাত্রদল করা সন্তানের জনক হলেন থানা ছাত্রলীগের সহসভাপতি

যমুনা নদীতে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন

চাঁদপুরের ডিসিকে বদলি, তিন জেলায় নতুন ডিসি

গাফফার চৌধুরী আর নেই

প্রধান শিক্ষিকার বিরুদ্ধে ভূমি দখলের পাঁয়তারার অভিযোগ

কুমিল্লার মানবজমিন প্রতিনিধিসহ সারাদেশের সাংবাদিকদের উপর হামলার প্রতিবাদে সোচ্চার রূপগঞ্জ প্রেসক্লাব ॥ প্রতিবাদ সভা, মানববন্ধন-বিক্ষোভ মিছিল

চাকরির নামে টাকা আত্মসাৎ গ্রেপ্তার ২

মহাসড়কে গাছ ফেলে ডাকাতি করতো তারা, গ্রেফতার ৬

বনের ভেতর সিসা তৈরির কারখানা, হুমকির মুখে পরিবেশ

বাঘাবাড়ী নৌবন্দর খুঁড়িয়ে চলছে