আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

নারায়ণগঞ্জে ভোটকেন্দ্রে হামলা চালিয়ে দুটি ব্যালট বাক্স ছিনতাই

news-image

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার বক্তাবলী ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের একটি ভোটকেন্দ্রে হামলা চালিয়ে দুটি ব্যালট বাক্স ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। এতে এক ঘণ্টা ওই কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ স্থগিত থাকে। পুলিশ ছিনতাই হওয়া ব্যালট বাক্স এখনো উদ্ধার করতে পারেনি।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ওই ইউনিয়নের রাজাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে এই ঘটনা ঘটেছে। জেলা পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম বলেন, কোন প্রার্থীর লোকজন ব্যালট ছিনতাই করেছেন, সেটির তদন্ত চলছে। ব্যালট বাক্স উদ্ধার ও জড়িত ব্যক্তিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।
তবে ওই কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা খলিলুর রহমান বলেন, ৪ নম্বর ওয়ার্ডে মোট ভোটার ১ হাজার ৮৮৮ জন। এর মধ্যে ৬ নম্বর বুথের ব্যালট বাক্সে ১২৬টি পুরুষ ও ১২৬টি নারী ভোট পড়েছিল এবং ২ নম্বর বুথে ১৫০টি পুরুষ ভোট ও ১৫০টি নারী ভোট পড়েছিল। দুর্বৃত্তরা ৫৫২টি ব্যালটভরা ব্যালট বাক্স ছিনতাই করে নিয়ে গেছেন। তিনি বলেন, ফুটবল প্রতীকের সদস্য প্রার্থী ওমর ফারুক নিজে তাঁর লোকজন নিয়ে হামলা করে ব্যালট বাক্স ছিনতাই করে নিয়ে গেছেন।
অভিযুক্ত ওমর ফারুকের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করে তাঁকে পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা আতাউর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, দুজনকে আটক করা হয়েছে। ব্যালট বাক্স উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। ছিনতাই হওয়ায় ভোটগুলো বাতিল হিসেবে গণ্য করা হবে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বক্তাবলী ইউপির ৪ নম্বর ওয়ার্ডের রাজাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে ভোট গ্রহণ চলাকালে ১০০-১৫০ লোক ওই কেন্দ্রে হামলা করেন। তাঁরা পুলিশ ও আনসার সদস্যদের বাধা উপেক্ষা করে ভোটকেন্দ্রে প্রবেশ করেন। এ সময় তাঁরা ৬ নম্বর বুথ থেকে ব্যালট বাক্স ছিনতাই করেন। ওই বুথের এজেন্টরা বাধা দেওয়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। পরে দুর্বৃত্তরা ২ নম্বর বুথ থেকে আরও একটি ব্যালট বাক্স ছিনতাই করেন। এ সময় ভোটকেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা আনসার সদস্যরা বাধা দিলেও দুর্বৃত্তরা ব্যালট বাক্স নিয়ে পালিয়ে যান।

সকাল ৮টা থেকে নারায়ণগঞ্জের ৩ উপজেলার (সদর, বন্দর ও রূপগঞ্জ) ১৬টি ইউপি নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এর মধ্যে পাঁচটি ইউপিতে প্রার্থী না থাকায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীরা নির্বাচিত হচ্ছেন।