আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

নারায়ণগঞ্জ সিটিতে ভোটের লড়াই আজ

news-image

আলোচিত নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনের ভোট আয়োজনের সব প্রস্তুতি শেষ করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ১৯২টি ভোটের সব সরঞ্জাম পাঠানো হয়েছে। রোববার সকাল ৮টা থেকে শুরু হয়ে একটানা বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলবে ভোটগ্রহণ। একইসঙ্গে প্রত্যেক কেন্দ্রেই থাকছে পর্যাপ্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য।

প্রার্থীদের ভোটের লড়াই

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র হতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন সাতজন প্রার্থী। তারা হলেন- বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সেলিনা হায়াত আইভী (নৌকা), খেলাফত মজলিসের এবিএম সিরাজুল মামুন (দেয়ালঘড়ি), স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা তৈমূর আলম খন্দকার (হাতি), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মাওলানা মো. মাছুম বিল্লাহ (হাতপাখা), বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের মো. জসীম উদ্দিন (বটগাছ), বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির মো. রাশেদ ফেরদৌস (হাতঘড়ি) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী কামরুল ইসলাম (ঘোড়া)। এছাড়া ২৭টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদপ্রার্থীর সংখ্যা ১৪৮ জন। ৯টি সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৩২ জন প্রার্থী রয়েছেন।

ভোট কেন্দ্র ও ভোটারের সংখ্যা

নির্বাচনের মোট ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ১৯২টি। প্রতিটি কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন বা ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট অনুষ্ঠিত হবে। ভোটার সংখ্যা ৫ লাখ ১৭ হাজার ৩৬১ জন, যাদের মধ্যে পুরুষ ভোটারের সংখ্যা ২ লাখ ৫৯ হাজার ৮৪৬ জন, আর নারী ভোটার আছেন ২ লাখ ৫৭ হাজার ৫১১ জন।

ইভিএম নিয়ে প্রার্থীদের মিশ্র প্রতিক্রিয়া

নির্বাচনি প্রচারণায় প্রধান দুই মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভী ও তৈমুর আলম খন্দকার ইভিএম নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন। আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী আইভী ইভিএমকে স্বাগত জানিয়েছেন। তবে জাল জালিয়াতি করা হলে আন্দোলন গড়ে তোলার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমুর।

শেষ বেলায় ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলন প্রার্থী মুফতি মাসুম বিল্লাহ নগরীর চাষাঢ়া শহীদ মিনার থেকে বেলা ১১টায় ও বিকালে গণমিছিল বের করেন।

ইভিএম নিয়ে ভোটারদের প্রতিক্রিয়া

ইভিএম নিয়ে ভোটারদের মাঝেও মিশ্র প্রতিক্রিয়া রয়েছে। তবে বেশিরভাগ ভোটারই এ যন্ত্রকে স্বাগত জানিয়েছেন। অনেকে আবার এ মেশিনে কিভাবে ভোট দেওয়া হয়- এর প্রচারণা আরও বেশি চালানো দরকার বলে মনে করেন।

নারী উদ্যোক্তা শাহতাজ মুনমুন বলেন, ইভিএমকে স্বাগত জানাই। নারায়ণগঞ্জ শ্রমিক অধ্যুষিত এলাকা। এখানে শিক্ষিত, অশিক্ষিত, খেটে খাওয়া মানুষ, বয়োবৃদ্ধ পুরুষ ও নারী ভোটার রয়েছেন। তারা ভোট দিতে যাবে। এই পদ্ধতিটি যেহেতু মানুষের কাছে নতুন তাই প্রতিটি কেন্দ্রে ভোটারদের যদি সঠিকভাবে নির্বাচন সংশ্লিষ্ট লোকজন গাইড দেয় তবেই সবাই স্বাচ্ছন্দ্যে ভোট দিতে পারবে।

ভোটার নাসির উদ্দিন বলেন, ইভিএমে কখনও ভোট দিইনি। কিভাবে ভোট দিতে হয় তাও জানি না। ভোট দেওয়ার আগে পাড়া-প্রতিবেশীর কাছ থেকে জেনে কেন্দ্রে যাবো।

নির্বাচনি সরঞ্জাম

রিটার্নিং কর্মকর্তা মাহফুজা আক্তার জানান, নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনে ১৯২টি কেন্দ্রের সরঞ্জাম তিনটি স্থান থেকে পাঠানো হচ্ছে। নগরীর মরগ্যান গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে দেওয়া হচ্ছে ১০ থেকে ১৮ নম্বর ওয়ার্ডের সরঞ্জাম। ১ থেকে ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সরঞ্জাম পাঠানো হচ্ছে সিদ্ধিরগঞ্জ পাওয়ার হাউস স্কুল থেকে। আর বন্দর থানার মালামাল বিতরণ হবে বন্দর থেকে।

নির্বাচন পর্যবেক্ষণ সংস্থা

নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করতে নয়টি সংস্থার ৪২ পর্যবেক্ষককে অনুমতি দিয়েছে কমিশন। সংস্থাগুলো হলো, জাতীয় নির্বাচন পর্যবেক্ষণ পরিষদ (জানিপপ), সার্ক মানবাধিক ফাউন্ডেশন, আইন সহায়তা কেন্দ্র (আসক) ফাউন্ডেশন, সমাজ উন্নয়ন প্রয়াস, তৃণমূল উন্নয়ন সংস্থা, তালতলা যুব উন্নয়ন সংগঠন, রিহাফ ফাউন্ডেশন, বিবি আছিয়া ফাউন্ডেশন এবং মানবাধিকার ও সমাজ উন্নয়ন সংস্থা-মওসুস। পর্যবেক্ষক হিসেবে কাজ করতে নির্বাচন পর্যবেক্ষণ নীতিমালা মানার পাশাপাশি এসব সংস্থাকে ভোট শেষ হওয়ার এক সপ্তাহের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের শর্ত দিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

নিরাপত্তা বেষ্টনী

ভোটারদের নির্বিঘ্নে ভোট প্রদানের আহ্বান জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ। নগরীর নিরাপত্তা জোরদার করতে মাঠে নেমেছে ১৮ প্লাটুন বিজিবি। এছাড়া র্যা বের ১০০ টিম, সাদা পোশাকে পুলিশ, গোয়েন্দা পুলিশ মাঠে থাকবে। নির্বাচনি সহিংসতা এড়াতে প্রতিটি ওয়ার্ড ও ভোটকেন্দ্রগুলোতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

প্রত্যেক কেন্দ্রকেই সমান গুরুত্ব দিয়ে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নির্বাচনের দিন কেন্দ্রগুলোতে ৩০ জন ম্যাজিস্ট্রেট থাকবেন। প্রতিটি ওয়ার্ডে তিনজন অতিরিক্ত ম্যাজিস্ট্রেট থাকবেন বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক।

বহিরাগতদের নারায়ণগঞ্জে প্রবেশ নিষেধ

ভোটের দিন নারায়ণগঞ্জে জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) ছাড়া কেউ চলাচল করতে পারবেন না বলে জানিয়েছেন জেলা পুলিশ সুপার (এসপি)। তিনি বলেন, আমাদের তরফ থেকে নির্বাচনি কোনো সহিংসতার আশঙ্কা নেই। নির্বাচনের দিন কোনো বহিরাগতকে নারায়ণগঞ্জে প্রবেশ করতে দেবো না। ভোটের দিন সবাইকে জাতীয় পরিচয়পত্র দেখে চলাচল করতে দেওয়া হবে। এজন্য রোববার (১৬ জানুয়ারি) নগরবাসীকে জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে চলাচল করার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন পুলিশ সুপার।

প্রসঙ্গত, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের শুরু থেকেই সরকারি দলের মেয়র প্রার্থী নৌকা প্রতীকের ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারের মধ্যে চলছে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই। আজকে নারায়ণগঞ্জের ভোটার তাদের ভোট পছন্দের প্রার্থীকে বেছে নেবেন।

এ জাতীয় আরও খবর

নারায়নগঞ্জে ৪১৪ জন শিক্ষককের আড়াই কোটি টাকা হাতিয়ে নিলেন জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শরিফুল ইসলাম

দৌলতদিয়ায় ৭ ফেরিঘাটের ৪টিই বিকল, যানবাহনের দীর্ঘ সারি

পানির নিচে পন্টুন, ঘাটে যানবাহনের দীর্ঘ সারি

ছাত্রদল করা সন্তানের জনক হলেন থানা ছাত্রলীগের সহসভাপতি

যমুনা নদীতে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন

চাঁদপুরের ডিসিকে বদলি, তিন জেলায় নতুন ডিসি

গাফফার চৌধুরী আর নেই

প্রধান শিক্ষিকার বিরুদ্ধে ভূমি দখলের পাঁয়তারার অভিযোগ

কুমিল্লার মানবজমিন প্রতিনিধিসহ সারাদেশের সাংবাদিকদের উপর হামলার প্রতিবাদে সোচ্চার রূপগঞ্জ প্রেসক্লাব ॥ প্রতিবাদ সভা, মানববন্ধন-বিক্ষোভ মিছিল

চাকরির নামে টাকা আত্মসাৎ গ্রেপ্তার ২

মহাসড়কে গাছ ফেলে ডাকাতি করতো তারা, গ্রেফতার ৬

বনের ভেতর সিসা তৈরির কারখানা, হুমকির মুখে পরিবেশ