আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

পাকিস্তানকে অবশ্যই হিন্দুদের ধর্মীয় স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে হবে

news-image

পাকিস্তানের কর্তৃপক্ষকে অবশ্যই দেশটিতে বসবাসরত সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের ধর্মীয় স্বাধীনতা রক্ষা ও উপাসনালয় তৈরির অধিকারের বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে বলে জানিয়েছে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল। ইসলামাবাদে প্রথম হিন্দু মন্দির নির্মাণে বাধা দেওয়ার পর গত ৭ জুলাই আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠনটির পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে এই সতর্কবার্তা দেওয়া হয়।

পাকিস্তানের রাজধানী ইসলামাবাদে প্রথম হিন্দু মন্দির নির্মাণের কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। যদিও এ মন্দির নির্মাণের জন্য সরকারই অনুদান দিয়েছিল। কিন্তু ইসলামী সংগঠনের ফতোয়া জারি এবং আলেমদের বৈষম্যমূলক প্রচারণার চাপে পড়ে পিছু হটেছে ইমরান সরকার। মন্দির নির্মাণ বন্ধে আদালতে পিটিশনও দাখিল করা হয়েছে। প্রস্তাবিত মন্দিরটি যেখানে নির্মাণ করা হবে, সেই স্থানের সীমানাপ্রাচীরটিও বিক্ষুব্ধ জনতা গুঁড়িয়ে ফেলেছে।

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের দক্ষিণ এশিয়ার প্রধান ওমর ওয়ারাইচ বলেছেন, ‘ধর্মীয় স্বাধীনতার অধিকারের প্রতি শ্রদ্ধার প্রতিশ্রুতি পাকিস্তানের হিন্দুদের কাছে দেশটির প্রতিষ্ঠাতা মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ করেছিলেন। দেশের সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর ধর্মীয় বিশ্বাসের স্বাধীনতা ও অবাধে ধর্মীয় অনুশীলনের অধিকারকে যারা অস্বীকার করে, তারা দেশের প্রতিষ্ঠাতার প্রতিশ্রুতির সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করে। পাকিস্তানের সংবিধান এবং আন্তর্জাতিক মানবাধিকারের দায়বদ্ধতার অধীনে দেশটিতে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের অধিকার সুরক্ষিত। যারা এটাতে বাধা প্রদান করছে, তারা মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে।’

গত বছর পাকিস্তান যখন ভারতীয় তীর্থযাত্রীদের জন্য করতারপুরের শিখ মন্দির চালু করেছিল, তখন আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ব্যাপক আলোড়নের সৃষ্টি হয়েছিল। সবাই ইমরান সরকারের এই পদক্ষেপকে সাধুবাদ জানিয়েছিল, বিশ্বে পাকিস্তানের একটা ইতিবাচক ভাবমূর্তি তৈরি হয়েছিল। তবে চলতি বছর উগ্রবাদীদের ঘৃণ্য চাপে ইসলামাবাদে হিন্দুদের মন্দির তৈরির কাজ বন্ধ করে সেই অর্জনকে উল্টে দেওয়া হয়েছে। এর ফলে পাকিস্তানের হিন্দু সম্প্রদায়কে যে বৈষম্যের মুখোমুখি হতে হচ্ছে, তা আরো বাড়বে বলে মনে করা হচ্ছে।

পাকিস্তানে হিন্দু সম্প্রদায়ের নিরবচ্ছিন্ন ধর্মীয় বৈষম্যের শিকার হওয়ার আরেকটি উদাহরণ সাম্প্রতিক বছরগুলোতে দেশটির বিভিন্ন স্থানে হিন্দুদের মন্দির ধ্বংস করা। এ ছাড়া হিন্দু সম্প্রদায়ের ব্যক্তিরা বৈষম্যমূলক ‘ব্লাসফেমি’-এর মিথ্যা অভিযোগের মুখোমুখি হয়েছেন। ব্লাসফেমি পাকিস্তানে এমন একটি অপরাধ, যার শাস্তি মৃত্যুদণ্ড। মন্দির এবং দোকানগুলোতে হামলা, অপহরণ, জোরপূর্বক ধর্মান্তরকরণ এবং শত শত হিন্দু মেয়েকে জোরপূর্বক বিবাহ দেশটিতে হিন্দুদের ধর্মীয় স্বাধীনতা হরণের উদাহরণ।

২০১৯ সালে দুটি পৃথক ঘটনায় একটি হিন্দু স্কুলের অধ্যক্ষ এবং একজন হিন্দু পশু চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ব্লাসফেমির অভিযোগের পর দক্ষিণ সিন্ধু প্রদেশে বিক্ষুব্ধ জনতা হিন্দুদের সম্পত্তি এবং উপাসনার স্থানগুলোতে বেপরোয়া আক্রমণ করেছিল।

পাকিস্তান কর্তৃপক্ষকে অবশ্যই এ জাতীয় পদক্ষেপের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে এবং হিন্দু সম্প্রদায়ের ধর্মীয় স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে হবে। সরকারকে সংখ্যালঘুদের দেওয়া সাংবিধানিক অধিকার রক্ষায় স্পষ্ট ও প্রকাশ্যে এ জাতীয় ঘটনার নিন্দা জানাতে হবে। সংখ্যালঘুদের প্রতি সহিংসতার প্রতিটি ঘটনার তাৎক্ষণিক তদন্ত করতে হবে এবং দায়ীদের অবশ্যই বিচারের আওতায় আনতে হবে। পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নেওয়া হলে এ জাতীয় ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধ করা যেতে পারে।

এ জাতীয় আরও খবর

আমতলীতে বিনা বাধায় খাসের জায়গা দখল

ভারত থেকে দেশে ঢুকছে পেঁয়াজবোঝাই ৩০০ ট্রাক

বিকল্প চ্যানেল দিয়ে শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ী নৌরুটে ফেরি চলাচল শুরু

দৌলতখানে সন্ত্রাসী হামলায় সাংবাদিক আহত

সাভারে যাত্রীবাহী বাস খাদে, আহত ১৫

পরীক্ষিত নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করতে হবে: ওবায়দুল কাদের

ওয়াহিদা খানমকে ওএসডি

বগুড়ায় থেমে নেই নদী থেকে বালু উত্তোলন

মাদ্রাসার ম্যানেজিং কমিটি অনুমোদনে অনিয়মের অভিযোগ

কুষ্টিয়ায় গৃহবধূকে ‘হত্যা’, বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

বাংলাদেশ হিন্দু মহাজোট মানিকগঞ্জ জেলা শাখার উদ্যোগে মানববন্ধ

বালিয়াখোড়া ৯ নং ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি সজীব ও সুজন পোদ্দার সম্পাদক নির্বাচিত