আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

পাটুরিয়া ফেরিঘাটে কর্মস্থলে ফেরার ঢল অব্যাহত

news-image

কঠোর লকডাউন উপেক্ষা করেই দেশের দক্ষিণ ও পশ্চিম অঞ্চলের জেলাগুলোর কর্মস্থলমুখী যাত্রীদের কর্মস্থলে ফেরার ঢল এখনও পাটুরিয়া ফেরিঘাটে অব্যাহত রয়েছে।

পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া রুটে জরুরি সেবায় নিয়োজিত গাড়ি ছাড়া ফেরিযোগে অন্য সব যানবাহন ও যাত্রী পারাপার নিষিদ্ধ থাকলেও সেই বিধিনিষেধের বালাই নেই ঘাট এলাকায়।

সোমবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত যে কয়টি ফেরি দৌলতদিয়া থেকে পাটুরিয়া ফেরিঘাটে এসেছে তার প্রতিটিতে অল্প যানবাহন আর বাকি স্থানগুলোতে যাত্রীদের গিজগিজে অবস্থান ছিল। সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাচল করার কথা থাকলেও বাস্তবে স্বাস্থ্যবিধি মানার সুযোগ নেই।

কর্মস্থলে ফেরার জন্য যে যেভাবে পারছে সেই অনুযায়ী যাওয়ার আপ্রাণ চেষ্টা করছে, একশ টাকার ভাড়ার বিপরীতে অতিরিক্ত আরও গুনতে হচ্ছে ক্ষেত্রবিশেষ ১০গুণ এবং ১৪ চৌদ্দগুণ ভাড়া।

দৌলতদিয়া থেকে পার হয়ে আসা মাগুরার রিয়াদ মাহমুদ (৪২) জানালেন, তিনি কাজ করেন গাজীপুরের কোনাবাড়ী এলাকায় একটি রফতানিমুখী পোশাক তৈরি কারখানায়। বাড়ি থেকে ভোরে রওনা হয়ে অনেক কষ্ট ভেঙে ভেয়ে ঘাটে আসতে সক্ষম হয়েছি। দৌলতদিয়া ঘাট থেকে ফেরিতে উঠতে রীতিমতো যুদ্ধ করে ফেরিতে উঠছি এবং এখন পাটুরিয়া ঘাটে এসে পৌঁছেছি। পাটুরিয়া ঘাটে এসে যানবাহনের মহা সংকট। গাজীপুর পর্যন্ত ২শ টাকার ভাড়া ১২শ টাকা। কিন্তু কিছুই করার নাই যেহেতু যেতে হবে!

পাটুরিয়া ঘাটে আলমগীর হোসেন (৪৩) নামের এক ভাড়ায়চালিত প্রাইভেটকারের চালক বলেন, ঘাটে তেমন গাড়ি নাই, সেজন্য এখন প্রচুর চাহিদা। এ কারণেই ভাড়াটা একটু বেশি নিচ্ছি, ভাড়া বেশি না নিলে তো লোকসান হয়ে যাবে। রাস্তায় বিভিন্ন জায়গা ম্যানেজ করে আমাদের চলতে হয়।

পাটুরিয়া থেকে গাবতলী কত টাকা ভাড়া নিচ্ছেন? এমন প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, গাবতলীর প্রতিটি যাত্রীর জন্য ভাড়া ৭০০ টাকা।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্পোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) আরিচা কার্যালয়ের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার (ভারপ্রাপ্ত) জিল্লুর রহমান জানালেন, পাটুরিয়া দৌলতদিয়া নৌরুটে জরুরি সেবায় নিয়োজিত যানবাহন পারাপারের জন্য ৮টি ফেরি নিয়োজিত আছে। যেহেতু পোশাক কারখানা খোলা সেজন্য বেশিসংখ্যক যাত্রী ফেরিতে উঠছেন। বাধ্য হয়ে তারা যানবাহনের পাশাপাশি যাত্রীও পারাপার করছেন