আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

ফেনী নদীতে বিলীন চর তুলাতুলি ভাঙছে ৩ ফসলি জমি ফসলি ও চরের জমি থেকে বালু উত্তোলন

news-image

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে ফসলি জমি ও চরের জমি থেকে বছরের পর বছর ধরে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে যাচ্ছে কয়েকটি প্রভাবশালী সিন্ডিকেট। ফলে ফেনী নদীতে বিলীন হয়ে যাচ্ছে তিন ফসলি জমিগুলো। ইতোমধ্যে চর তুলাতুলি নামে একটি পুরো মৌজা নদীতে চলে গেছে। এভাবে বালু উত্তোলন অব্যাহত থাকলে আবাসিক এলাকার বাড়িঘরও নদীতে বিলীন হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী।
সরেজমিন দেখা যায়, মিরসরাই উপজেলার ফেনী নদীর করেরহাট ইউনিয়নের পশ্চিম জোয়ার, দিয়ার চর, অলিনগর, মুহুরী প্রজেক্ট, শুক্কুর বারইয়ারহাট এলাকার তিন ফসলি জমি ক্রমান্বয়ে বিলীন হয়ে যাচ্ছে ফেনী নদীতে। সেই সাথে হুমকির মুখে পড়েছে নদীপাড়ের বসতি ও মৎস্য প্রকল্প। রাতে বালু উত্তোলনের আদলে ফসলি জমি কাটা হচ্ছে এবং যারাই বাধা দিতে আসছে তাদেরকে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র দিয়ে ভয় দেখানো হচ্ছে। সম্প্রতি নিজেদের জমি ও বসতবাড়ি রক্ষার দাবিতে মিরসরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন এলাকাবাসী।
দিয়ার চর রক্ষা কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ শোয়াইব জানান, বালু উত্তোলনের আদলে ফসলি জমি কাটা হচ্ছে। গত কয়েক দিন ধরে ৭০-৮০ জন সন্ত্রাসী রাত-দিন ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ও ফাঁকা আওয়াজ করে জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি করে বেড়াচ্ছে। তাদের বাধা দিতে গেলে প্রাণনাশের হুমকি দেয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে চর তুলাতলি মৌজায় ফসলি জমি থেকে বালু উত্তোলনের কারণে পুরো তুলাতুলি এখন নদীতে ভেঙে গেছে।
সরেজমিন আরো দেখা যায়, মিরসরাইয়ের ওচমানপুর ইউনিয়নের পশ্চিম তাজপুর ও পশ্চিম গোবিন্দপুর মৌজার ফতেহপুর ও আজমপুর এলাকায় ফেনী নদীতে তিন-চারটি বড় ড্রেজার বসিয়ে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। নদীর পশ্চিম পাশে আরো কয়েকটি মেশিন বসিয়ে বালু উত্তোলন করতে দেখা গেছে।
নদীর বিভিন্ন অংশ থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের পর বালুগুলো ইঞ্জিনচালিত নৌকায় করে শুভপুর, মুহুরী ব্রিজ, লেমুয়া, ধুমঘাটসহ বিভিন্ন স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে বালু বিক্রি করা হয়ে থাকে।
সোনাগাজী উপজেলার চর সোনাপুর থাককোয়াছি লামছি মৌজায় একটি মহাল ইজারা নেয়া হলেও সেখানে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে না। ইজারাদাররা বালু উত্তোলন করছে মিরসরাই অংশের মোবারকঘোনা থেকে মুহুরী প্রজেক্ট পর্যন্ত এলাকায় গিয়ে। ইজারা নেয়া অংশে তারা সুবিধা মতো সময়ে বালু উত্তোলন করবেন। ইজারা নেয়া অংশ নিজেদের কব্জায় রেখে দিয়ে অন্য আরো সাতটি স্থান থেকে লাখ লাখ ঘনফুট বালু উত্তোলন করে চলছে প্রভাবশালী ওই মহলটি। কোনো কিছুর তোয়াক্কা না করে গত কয়েক বছর ধরেই দেদারসে বালু উত্তোলন করে যাচ্ছে তারা।
তিনি আরো বলেন, অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের কারণে গত কয়েক বছরে এই এলাকার প্রায় এক শ’ একর মৎস্যপ্রকল্প নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। এভাবে চলতে থাকলে এখন যে মৎস্য প্রকল্পগুলো আছে, সেগুলোও ধ্বংস হয়ে যাবে। মৎস্যচাষি আব্দুস সাত্তার বলেন, এভাবে বালু উত্তোলন অব্যাহত থাকলে হুমকির মুখে পড়বে মুহুরী সেচ প্রকল্প।
এলাকাবাসীর অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গত বৃহস্পতিবার করেরহাট ইউনিয়নের পশ্চিম জোয়ার এলাকা পরিদর্শন করেছেন মিরসরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মিনহাজুর রহমান ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মিজানুর রহমান। ইউএনও বলেন, ফেনী নদীতে অভিযানে গিয়ে দেখেছি খুবই ভয়াবহ অবস্থা। শত শত একর চরের জমি কেটে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। যদিও অভিযানে গিয়ে কাউকেই পাওয়া যায়নি। মনে হচ্ছে আমাদের অভিযানের তথ্য ফাঁস হয়ে যায়। তারপরও দু’টি শ্যালো মেশিন জব্দ করা হয়েছে। অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধে উপজেলা প্রশাসনের অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে তিনি আশ্বস্ত করেন।

এ জাতীয় আরও খবর

অভিযানের খবরে ড্রেজার রেখে পালালেন অবৈধ বালু উত্তোলনকারীরা

আনোয়ারায় বালু ব্যবসায়ীকে জরিমানা

মাটিকে গুরুত্ব দিয়ে খাদ্য উৎপাদন বাড়াতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

নাশকতা মামলায় বিএনপির বদলে আ.লীগ নেতা আটক পুলিশের ভূমিকায় ক্ষুব্ধ দলীয় নেতাকর্মী

ধোপাজান নদীর বালু-পাথরের টাকা সিন্ডিকেটের পকেটে

পদ্মার চরে মাটি-বালু লুট চলছেই

শঙ্খ নদী থেকে বালু উত্তোলন, জরিমানা

চাঁঁদপুরের মেঘনা পাড়ের মাটি কাটায় ৪ জনকে দুই লাখ টাকা জরিমানা

নালিতাবাড়ীতে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন, জরিমানা আদায়

টাঙ্গাইলে চায়নার ডেইরি ফিডের জন্য নিশ্চিহ্ন হচ্ছে জমি ও শতাধিক বাড়ি

আমরা উন্নয়ন করি, আর বিএনপি মানুষ খুন করে: প্রধানমন্ত্রী

চট্টগ্রামে ২৯ প্রকল্পের উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর