আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

ফেরিতে উঠতে গিয়ে মাইক্রোবাস নদীতে, যেভাবে বেঁচে গেলেন যাত্রীরা

news-image

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় বক্তাবলী ফেরিঘাটে যাত্রীবাহী একটি মাইক্রোবাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বুড়িগঙ্গা নদীতে পড়ে ডুবে গেছে। এ সময় ওই মাইক্রোবাসে থাকা এক প্রবাসীর শিশুসন্তান ও স্ত্রী ভাগ্যক্রমে বেঁচে গেছেন। ডুবে যাওয়ার পর আশপাশের লোকজন তাৎক্ষণিকভাবে মাইক্রোবাস থেকে মা ও শিশুটিকে দ্রুত উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যান। তাদের নাম পরিচয় জানা যায়নি।

রবিবার (১৬ মে) সকাল ১০টায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে নৌ-পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল সন্ধ্যায় রেকারের মাধ্যমে ডুবে যাওয়া মাইক্রোবাসটি উদ্ধার করে। পরে রাতে সিসি টিভি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় সাংবাদিকরা বিষয়টি জানতে পারেন।

মাইক্রোবাসের মালিক শাহীন মিয়া সাংবাদিকদের জানান, মাইক্রোবাসটি এক প্রবাসীকে আনতে এক নারী ও তার সন্তানকে নিয়ে ঢাকার এয়ারপোর্টে যাচ্ছিলেন। বক্তাবলী ফেরিঘাটে পৌঁছে ফেরির জন্য অপেক্ষা করছিল মাইক্রোবাসটি। এ সময় চালক মাইক্রোবাসটি দাঁড় করে রাস্তায় নেমে আসেন। পরে মাইক্রোবাসটি হঠাৎ নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে নদীতে পড়ে গিয়ে ডুবে যায়। পরে আশপাশের লোকজন তাৎক্ষণিকভাবে ডুবে যাওয়া মাইক্রোবাস থেকে শিশু এবং ওই নারীকে উদ্ধার করেন। এ সময় তারা সামান্য আহত হন।

ফতুল্লা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. রকিবুজ্জামান জানান, গাড়িটি বুড়িগঙ্গা নদীতে ডুবে গেলেও এর ভেতর কোনও যাত্রী ছিল না। সন্ধ্যায় মাইক্রোবাসটি উদ্ধার করা হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক আবদুল্লাহ আল আরেফিন বলেন, ‘বিকালে খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল কয়েকটি রশি দিয়ে গাড়িটি বেঁধে উত্তোলনের পর্যায়ে নিয়ে আসে। পরে রেকারের মাধ্যমে মাইক্রোবাসটি সন্ধ্যায় উঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় ভাগ্যক্রমে চালকসহ তিন জন বেঁচে গেছেন।’