আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

বিএনপিকে পেটালেও নৌকায় ভোট দেবে না: অ্যাডভোকেট তৈমুর

news-image

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী বিএনপি নেতা তৈমুর আলম খন্দকার বলেছেন, আমি রাজপথে গুলি খাওয়া লোক। গরুর মতো পুলিশে পিটিয়েছে। বহুবার জেল খেটেছি এই দলের জন্য। আমি নেতাকর্মীদের কাছে পরীক্ষিত ব্যক্তি। নারায়ণগঞ্জের মানুষ যেমন দল করে তেমনি তারা নারায়ণগঞ্জেরও নাগরিক। তারা নারায়ণগঞ্জের নেতা, জনগণের নেতৃত্বও দেন তারা। বিএনপিকে পেটালেও নৌকায় ভোট দিবে না।

মঙ্গলবার নাসিক সিদ্ধিরগঞ্জের ৪নং ওয়ার্ডে গণসংযোগ করার সময় ভোটারদের উদ্দেশ্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, আমরা নারায়ণগঞ্জ কারও কাছে বর্গা দেইনি। আমরা নারায়ণগঞ্জের নাগরিক। নারায়ণগঞ্জের সব রাজনৈতিক সামাজিক সংগঠনের লোকজন আমার সঙ্গে আছে। বিএনপির তৃনমূল নেতাকর্মীরা সবসময় আমার পাশে আছে। কাগজি ফরমায়েশি নারায়ণগঞ্জের মানুষ মানে না।

তিনি বলেন, আমি দেখিনা কোনো বিএনপির লোক ঘরে বসে আছে। সব অঙ্গ সংগঠনের লোকেরাই আছে। প্রতিদিন তো সবার পক্ষে মিছিল করা সম্ভব না। আমিতো দেখিনি কেউ বসে আছে। ঢাকায় এসি রুমে বসে যে যেই কথাই বলুক- বিএনপির লোকজন নৌকাকে ভোট দিবে না।

তিনি আরও বলেন, ২০১১ সালে আমি বসিনি। আমার দল বসে গিয়েছে। আমাকে দল বসিয়ে দিয়ে এখন যিনি নৌকার প্রার্থী তাকে বেনিফিট দিয়েছে। তাকে জয়লাভ করার সুযোগ করে দিয়েছে। মানুষ বলে সেই প্রার্থীকেই জয়লাভ করানোর জন্য কোন কোন জায়গায় ইঞ্জিনিয়ারিং হচ্ছে। তবে মনে রাখবেন বিএনপির লোকজনকে পিটালেও কারও কথায় তারা নৌকায় ভোট দেবে না।

তৈমুর বলেন, আমি আল্লাহর কাছে আলহামদুলিল্লাহ বলে শুকরিয়া আদায় করেছি, আবারও করছি। আমি মনে করি আমার নির্বাচনের রাস্তাটাকে আমার দল প্রশস্ত করে দিয়েছে। বিএনপির লোকেরা নৌকায় ভোট দিবে না বরং নৌকার লোকদের এখন সুযোগ হয়েছে আমাকে ভোট দেয়ার। কারণ আমার দল আমাকে নিরপেক্ষ বানিয়ে দিয়েছে, জনগণের বানিয়ে দিয়েছে। সেজন্য শুকরিয়া কামনা করি।

তিনি আরও বলেন, নির্বাচনে জনগণ জয়লাভ করবে। আমার গায়ে এখন কোন রং নেই, সাদা হয়ে গেছি। এটা নেতা-কর্মীদের জন্যেও ভাল হয়েছে। আমি মনে করি ভাগ্যের মালিক আল্লাহ, তিনি জনগণের পক্ষে থাকবে।

এ সময় তার সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন নাসিক ৪নং ওয়ার্ড বিএনপি’র সভাপতি টিএইচ তোফা, সহ-সভাপতি হাজী কবির হোসেন, সাবেক যুবদল নেতা রানা মুজিব, থানা বিএনপির সদস্য সেলিম মাহমুদ, মহানগর যুবদলের যুগ্ম সম্পাদক মাহবুব হোসেন, ওয়ার্ড বিএনপির সদস্য আইয়ুব আলী মুন্সী, ৪নং ওয়ার্ড ছাত্রদলের সভাপতি রানা, সাধারণ সম্পাদক মৃদুল, ৪নং ওয়ার্ড মহিলা দলের সভাপতি রিনা বেগম, সাধারণ সম্পাদক হেলেনা ও বিএনপি নেতা আবুল হোসেন প্রমুখ।

নাসিক ৪নং ওয়ার্ডের শিমরাইল উত্তরপাড়া, দক্ষিণপাড়া, বৌবাজার, আটি ওয়াবদা কলোনি, সিদ্ধিরগঞ্জ হাউজিং, ছাপাখানা ও ফকির বাড়ি এলাকায় গণসংযোগ করেন অ্যাডভোকেট তৈমুর।

এ জাতীয় আরও খবর