আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

মানিকগঞ্জে কাজের বিল না দেয়ায় ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অভিযোগ

news-image

রাস্তার কাজ করিয়ে বিল দিচ্ছে না মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার জামসা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিঠু। দেই দিচ্ছি বলে তালবাহানা করে প্রকল্প সভাপতি ভুক্তভোগী আসিয়া খাতুনকে হুমকি দামকি দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে ওই ইউনিয়ন পরিষদের ৭,৮ ও ৯নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার আসিয়া খাতুন।
জানা গেছে, গত ২০১৯-২০ অর্থ বছরের স্থাবর সম্পতির হস্তান্তর ১ শতাংস খাতের আওতায় দক্ষিন জামশা সরকার নিবাস হতে জামশা ব্রিজ পর্যন্ত রাস্তায় মাটি ভরাট ও প্যালাসাইডিং কাজের সভাপতি হিসেবে মহিলা মেম্বার আসিয়া খাতুনকে দায়িত্ব দেয় ইউপি চেয়ারম্যান। ওই রাস্তায় মাটি ভরাট ও ১১টি প্যালাসাইডিং নির্মাণ করে মহিলা মেম্বার। কাজ চলাকালীন সময় প্রকল্প সভাপতি মহিলা মেম্বারকে চার লাখ টাকা দেন ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিঠু। সেই চার লাখ টাকা থেকে সরকারি ভ্যাট উনিশ হাজার এবং চেয়ারম্যান সালামি বাবদ ৫৫ হাজার টাকা দেয়া নেন। এরপর চেয়ারম্যান ওই কাজের বিল দিতে তালবাহানা শুরু করে।

পরে কোন উপায় না পেয়ে প্রকল্প সভাপতি ভুক্তভোগী মহিলা মেম্বার সিংগাইর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরারবর লিখিত অভিযোগ করেন। লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে নির্বাহী কর্মকর্তা সরেজমিন তদন্ত করতে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেন। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সরেজমিন তদন্ত করে নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। ওই তদন্ত প্রতিবেদনে উল্যেখ করা হয়েছে ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিঠুর নির্দেশনায় মহিলা মেম্বার আসিয়া খাতুন এগারো শত ১৩ মিটার দৈর্ঘ্য রাস্তায় বাশেঁর প্যালাসাইডিং সহ রাস্তার দুই পাশে ভরাট করেছে।এছাড়াও অতিরিক্ত ৫৭ গাড়ি মাটি ও ১৪ গাড়ী ইটের খোয়া ফেলানো হয়েছে।
২০১৯-২০ অর্থ বছরের ১ শতাংস তহবিল হতে ওই রাস্তার ৩৬০ মিটার কাজের বিল বাবদ দুই লাখ টাকা এবং ৫২.৭২ মিটার বাশেঁর বেড়া ও বস্তার চেগার নির্মাণ বাবদ দুই লাখসহ মোট চার লাখ টাকা দেয়া হয়েছে প্রকল্প সভাপতি আসিয়া খাতুনকে। ওই রাস্তার দৈর্ঘ্য প্রায় এগারো শত ১৩ মিটার যার মধ্যে ৩৬০ মিটার ও ৫২.৭০ মিটার প্যালাসাইডিং কাজের বিল দেয়া হয়েছে। বাকি ৭৫৩ মিটার রাস্তার কাজের বিল বকেয়া রয়েছে বলে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেছে তদন্ত কর্মকর্তা।

ভুক্তভোগী মহিলা মেম্বার আসিয়া খাতুন বলেন, চেয়ারম্যান অসৎ উদ্দেশ্য হাসিল করতে আমাকে জোর করে ওই রাস্তার সভাপতি করে কাজ করার দায়িত্ব দেন। আমি সহজ সরল মনে মেয়ের নিকট থেকে টাকা ধার করে এনে রাস্তার কাজ শেষ করেছি। কাজ চলাকালীন সময় চেয়ারম্যান আমাকে চার লাখ টাকা দেয়। এরপর কাজের বিল চাইতে গেলে চেয়ারম্যান আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে। রাস্তার কাজের বিল তো দিচ্ছেই না এমনকি এক বছর যাবত আমাকে পরিষদেও কোন সুযোগ সুবিধা দেয়া হচ্ছে না এবং পরিষদে ডুকতে দেয়া হচ্ছে না। আমি ২৫ বছর যাবত এই ইউনিয়ন পরিষদে মেম্বার হিসেবে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি।এ ব্যাপারে জামশা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিঠু বলেন, মহিলা মেম্বার যতটুকু রাস্তার কাজ করেছে ওই পরিমানে তার বিল পরিশোধ করা হয়েছে। উনি আমার বিরুদ্ধে ইউএনওর কাছে অভিযোগ করেছিল। তারপর তাকে আট লাখ টাকা দিয়েছি। ওই মহিলা মেম্বার একটা বাটপার, সে মেম্বারের কিছুই বুঝে না। বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে ভাতার নামে টাকা নেন। আমি তাকে পরিষদে আসতে নিষেধ করিনি।

এ বিষয়ে সিংগাইর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুনা লায়লা বলেন, এ ব্যাপারে মহিলা মেম্বার লিখিত অভিযোগ করেছিল। যার প্রেক্ষিতে আমি সরেজমিন তদন্ত করতে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দিয়েছিলাম। পরে চেয়ারম্যান বলেছে মহিলা মেম্বার সবটুকু কাজ করে নাই। তাই বিল পাবে না বলে জানান চেয়ারম্যান। কিন্তু মহিলা মেম্বারের দাবি তিনি ১৬ লাখ টাকার কাজ করেছে।

এ জাতীয় আরও খবর

শেখ রাসেলের জন্মদিনে ৫৮ কেজি ওজনের কেক কাটলেন মেয়র জাহাঙ্গীর

বিনা ভোটে নির্বাচিত হচ্ছেন ১৮ চেয়ারম্যান

‘প্রশাসনে বাংলাদেশি যেমন আছে, অসংখ্য পাকিস্তানিও আছে’

সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে জাতিসংঘের আহ্বান

শিশু শ্রমে নির্মাণ হচ্ছে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর

পীরগঞ্জে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় মতবিনিময়

বিএনপি-জামায়াত বা তৃতীয় শক্তির জড়িত থাকার সম্ভাবনা উড়িয়ে দিচ্ছি না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

পীরগঞ্জে জেলে পল্লিতে হামলার প্রতিবাদে দিনাজপুরে ছাত্রলীগের বিক্ষোভ

উপকূলে ৩নং সতর্ক সংকেত, দক্ষিণাঞ্চলে ভারী বর্ষণের সম্ভাবনা

‘শেখ রাসেল স্বর্ণ পদক’ বিতরণ করলেন প্রধানমন্ত্রী

কোন শিশুকে যেন রাসেলের ভাগ্যবরণ করতে না হয়: প্রধানমন্ত্রী

ফতুল্লায় মিশুক চালককে হত্যার দুই ঘাতক গ্রেপ্তার