আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

মৃতকে জীবিত দেখিয়ে ভাতার টাকা তুলে নিলেন ইউপি সদস্য

তাড়াশে মৃত ভাতাভোগীকে জীবিত দেখিয়ে বয়স্ক ভাতার কার্ডের টাকা তুলে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ইলিয়াস আলী নামের এক ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে।

এ ঘটনার পর ভাতাভোগীর ছেলে চিনি বাদ্যকর বারুহাঁস ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোক্তার হোসেনের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার বারুহাঁস ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের বিনসাড়া গ্রামে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার বারুহাঁস ইউনিয়নের বিনসাড়া গ্রামের মৃত অনিল চন্দ্র বাদ্যকরের স্ত্রী ফুল কুমারীর নামে একটি বয়স্ক ভাতার কার্ড ছিল। এক বছর আগে তিনি মারা যান। তার সেই কার্ডের নোমিনি ছিলেন তার ছেলে চিনি বাদ্যকর। মায়ের মৃত্যুর পর ছেলে চিনি বাদ্যকর ব্যাংকে তার মায়ের নামে জমা ভাতার টাকা তুলতে ওই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ইলিয়াস আলী ভূঁইয়ার কাছে যান। এই সুযোগে ইউপি সদস্য ইলিয়াস আলী সুকৌশলে নোমিনির কাছ থেকে ভাতার বই নিয়ে নেন। পরে তিনি ভাতাভোগীর মোবাইল নম্বর পরিবর্তন করে ব্যাংকে নিজের মোবাইল নম্বর দিয়ে দেন। চিনির কাছ থেকে একটি টিপসই নিয়ে পরে টাকা এলে দেওয়া হবে বলে বাড়িতে পাঠিয়ে দেন।

এরপর চিনি ব্যাংকে তার মায়ের নামের টাকা তুলতে গেলে তাকে তাড়াশের বিনসাড়া ব্যাংক এশিয়ার এজেন্ট শাখার কর্মকর্তা জানান, ইউপি সদস্য ইলিয়াস আলী ওই টাকা তুলে নিয়ে নিয়েছেন।

এ ব্যাপারে ইউপি সদস্য ইলিয়াস আলী বলেন, এ রকম কাজ অনেক মেম্বারই করেন; কিন্তু আমার বেলায় এত সমস্যা হয় কেন বুঝি না বলে তিনি ফোন কেটে দেন।

বারুহাঁস ইউপি চেয়ারম্যান মো. মোক্তার হোসেন মুক্তা বলেন, আমার কাছে ভুক্তভোগী চিনি তার মায়ের বয়স্ক ভাতার বই নিয়ে এসে বিস্তারিত জানান ও লিখিত অভিযোগ করেন। পরে আমি এশিয়া ব্যাংকের কর্মকর্তার কাছে বিস্তারিত জানতে চাইলে তিনি বলেন, ইউপি সদস্য তার নিজ মোবাইল নম্বর দিয়ে টাকা উত্তোলন করে নিয়েছেন।

ব্যাংক এশিয়ার তাড়াশ উপজেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মবিন উদ্দিন বলেন, ফুল কুমারীর ভাতার টাকা স্থানীয় ইউপি সদস্য তথ্য গোপন করে তার মোবাইল দিয়ে উত্তোলন করেছেন।

এ প্রসঙ্গে তাড়াশ ইউএনও মো. মেজবাউল করিম বলেন, অভিযোগের বিষয়টি আমি শুনেছি। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।