আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

মেলা শহরে, টিকিট বিক্রি গ্রামে গ্রামে

news-image

মোটর সাইকেলের লোভে বগুড়ার শাজাহানপুরের ডোমনপুকুর গ্রামের দিনমজুর সাইফুল ইসলাম প্রতিদিন ২০টি টিকিট কেনেন। গত এক সপ্তাহ ধরে এভাবে টিকিট কিনেই চলেছেন, কিন্তু তাঁর ভাগ্যে এখনও জোটেনি মোটরসাইকেল। প্রতিটি টিকিটের দাম ২০ টাকা। এতে তাঁর এক সপ্তাহে টিকিটের পেছনে গচ্ছা গেছে দুই হাজার ৮০০ টাকা। মোটরসাইকেল পাবেন- এ আশায় এখনও হাল ছাড়েননি। লটারির টিকিট কেনার কারণে তাঁর স্ত্রীর সঙ্গেও মনোমালিন্য শুরু হয়েছে।

বগুড়া সদরের মানিকচক উচ্চ বিদ্যালয় এলাকায়ও টিকিট কেনার জন্য কোমলমতি প্রাথমিক শ্রেণির শিক্ষার্থীরাও পিছিয়ে নেই। রবিউল ইসলাম নামে পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্র জানায়, মোটরসাইকেল পাবার আশায় সে প্রতিদিন দুটি টিকিট কেনে। মেলার প্রবেশ গেটেও প্রতিদিন স্কুল-কলেজপড়ুয়া শত শত শিক্ষার্থী টিকিট কিনছে। এই টিকিট মেলায় প্রবেশের টিকিট নাম করে বিক্রি করা হলেও ওই টিকিটের ক্রেতারা মেলায় যান না। বিশেষ করে গ্রামে গ্রামে অটোবাইকে করে ঘুরে ঘুরে যেসব টিকিট বিক্রি করা হচ্ছে ওই টিকিটের ক্রেতারা মেলা কোথায় হচ্ছে, অনেকে তাও জানেন না।
জানা যায়, যে মেলার নাম করে টিকিট বিক্রি, তা হচ্ছে বগুড়া শহরের মোহাম্মদ আলী হাসপাতাল মাঠে। ২৩ মে মাসব্যাপী তাঁতবস্ত্র, কুটিরশিল্প ও পণ্যমেলার উদ্বোধন করা হয়। বগুড়া মোটর শ্রমিক ইউনিয়ন, বগুড়া কালেক্টরেট কল্যাণ সমবায় সমিতি লিমিটেড ও বাংলাদেশ সরকারি কর্মচারী পরিষদ জেলা প্রশাসক কার্যালয় বগুড়ার আয়োজনে মাসব্যাপী এই মেলা শুরু হয়।
গাবতলীর নাড়ূয়ামালা এলাকার চা বিক্রেতা ফজল মিয়া জানান, তিনি প্রতিদিন ৩-৪টি টিকিট কেনেন মোটরসাইকেলের আশায়, মেলায় যাওয়ার জন্য নয়। মেলা কোথায় কোন মাঠে হচ্ছে তা তিনি জানেন না। টিকিটে লেখা আছে প্রতিদিন রাত সাড়ে ১০টায় মেলা মঞ্চে প্রবেশের টিকিটের ওপর লটারি হবে। লটারিতে প্রতিদিন ৩-৪টি মোটরবাইকসহ নানা আকর্ষণীয় পুরস্কার দেওয়ার কথা বলে টিকিট বিক্রিও বাড়ানো হয়। এই টিকিট বিক্রেতারা প্রতিদিন পান ৪০০ টাকা।

মেলার ইভেন্ট ম্যানেজমেন্টের দায়িত্বপ্রাপ্তদের মধ্যে মো. আলমগীর হোসেন বলেন, গ্রামে গ্রামে ঘুরে টিকিট বিক্রি করার উদ্দেশ্য টিকিট বিক্রি বাড়ানো। প্রতিদিন ৪-৫টি মোটরসাইকেল পুরস্কার দেওয়া হচ্ছে। মোটরসাইকেলের টাকা তুলতেই গ্রামে গ্রামে টিকিট বিক্রি করতে বাধ্য হতে হচ্ছে।
বগুড়া কালেক্টরেট কল্যাণ সমবায় সমিতি লিমিটেডের সাধারণ সম্পাদক ফজলুর রহমান বলেন, ‘এ থেকে আমাদের সমিতির আয় হবে এই আশায় মেলার সঙ্গে আমাদের সংগঠন যুক্ত হয়েছে। তবে কী সুবিধা, কোন খাত থেকে পাওয়া যাবে তা আমার জানা নেই।’
বগুড়া জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আব্দুল হামিদ মিঠুল বলেন, করোনার কারণে দীর্ঘদিন মানুষ বিনোদন থেকে বঞ্চিত ছিল। তাই বিনোদনের জন্য এই মেলার আয়োজন করা হয়েছে। মেলায় প্রবেশ টিকিটের ওপর শুভেচ্ছা পুরস্কার হিসেবে প্রতিদিন মোটরসাইকেল পুরস্কার দেওয়া হচ্ছে।
মেলার প্রবেশ টিকিটের ওপর লটারির বিষয়ে জেলা প্রশাসক মো. জিয়াউল হক বলেন, গ্রামে ঘুরে ঘুরে প্রবেশ টিকিট বিক্রি করা ঠিক নয়। এভাবে টিকিট বিক্রি বন্ধ করা হবে। কোনো রকম লটারি মেলায় চলতে দেওয়া হবে না।

এ জাতীয় আরও খবর

পদ্মা সেতু: শিল্পের জন্য প্রস্তুত গোপালগঞ্জ

এখন যানবাহনের অপেক্ষায় ফেরি

ফেরিতে পাঁচ ভাগের এক ভাগে নেমে এলো ছোট গাড়ি

বাঁশখালীতে বিদ্যুৎকেন্দ্রে বিস্ফোরণ

মানিকগঞ্জে পদ্মা সেতুর লাইভ অনুষ্ঠানে অস্ত্র নিয়ে মহড়া, সাংবাদিক গ্রেপ্তার

উল্লাসে মেতেছে পদ্মা পাড়ের মানুষ

চার মাস না যেতেই উঠছে ৯ কোটি টাকার সড়কের পিচ

পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষ্যে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর পিঠা উৎসব

নদী ভাঙা মানুষের বিলাপ

সাঁতরে মঞ্চে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলল কিশোরী

বঙ্গবন্ধুর শ্রেষ্ঠ উপহার স্বাধীনতা, আর প্রধানমন্ত্রীর শ্রেষ্ঠ উপহার পদ্মা সেতু : পাট ও বস্ত্রমন্ত্রী

সেতুর উদ্বোধনে ফায়ার সার্ভিসের শোভাযাত্রা