আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

মোবাইল কলে বের হয়ে আসাদুল ফিরলেন লাশ হয়ে

news-image

একটি মোবাইল কলে আসাদুল (২৭) বসত ঘর থেকে বের হলেও শুক্রবার ফিরেছে লাশ হয়ে। ১২ দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর ঢাকার একটি হাসপাতালে আসাদুল নামে এ যুবকের মৃত্যু হয়েছে।
উপজেলার কাইটাইল ইউনিয়নে বড় খাগুরিয়ার পাচবাড়ি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত আসাদুল কৃষক আলতু মিয়ার ছেলে।

পরিবারের দাবি আসাদুলকে প্রতিবেশী আহুস মিয়ার লোকজন কুপিয়ে হত্যা করে মৃত্যু হয়েছে ভেবে লাশ গুম করতে চেয়েছিল।

নিহতের আসাদুলের বোন ললিতা আক্তার বলেন, গত ৭ নভেম্বর গভীর রাতে আমার ভাই আসাদুলের মোবাইলে একটি ফোন আসলে সে ঘর থেকে বের হয়ে যায়। একটু পরেই আমার চাচাতো ভাই জাকারিয়া আসাদুল ভাইকে মারপিটের করতেছে এমন চিৎকারের শব্দ পায়। ঘর থেকে বের হয়ে দেখে আমার ভাইকে প্রতিবেশী আহুস মিয়ার ছেলে জুয়েল, আলামিন, মজিবুর, সাইকুল রক্তাক্ত অবস্থায় ঘর থেকে বের করছে। তারাই মূলত পরিকল্পিতভাবে আমার ভাইকে কুপিয়ে হত্যা করেছে। তারা লাশ গুম করতে চেয়েছিল।

তিনি বলেন, আমার জানা মতে- তাদের সাথে তো আমার ভাইয়ের কোন শত্রুতা ছিল না। ঘটনার পরদিনেই আমার বাবা মদন থানায় অজ্ঞাতনামা আসামি করে একটি মামলা করেন। পুলিশ জুয়েলকে ঢাকা থেকে গ্রেফতার করে বুধবার জেল হাজতে পাঠায়।

মদন থানার ওসি মুহাম্মদ ফেরদৌস আলম জানান, আসাদুলকে গভীর রাতে রক্তাক্ত অবস্থায় তার পরিবারের লোকজন উদ্ধার করে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা নিয়ে গেলে সেখানেই তার মৃত্যু হয়। শুক্রবার সন্ধ্যায় তার লাশ গ্রামের বাড়িতে এসেছে।

তিনি বলেন, বিষয়টির তদন্ত চলছে। তদন্তের পর বিস্তারিত বলা যাবে। জুয়েল নামে একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

অভিযুক্ত আহুস মিয়ার পরিবারের লোকজন পলাতক থাকায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।