আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

লকডাউন ঘোষণায় ঢাকার বাস টার্মিনাল ও বাজারে ভিড়

news-image

দেশব্যাপী লকডাউনের ঘোষণায় রাজধানীর বাস টার্মিনালগুলো ও সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে শুরু হয়েছে মানুষের ভিড়। পাশাপশি, লকডাউনের ঘোষণার পরপরই রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে আতঙ্কের কেনাকাটা করতে আসা মানুষের ভিড়ও লক্ষ্য করা গেছে।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের আজ শনিবার সকালে প্রথম ‘লকডাউনের’ খবর জানান। এরপর জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ‘লকডাউনের’ সিদ্ধান্তের কথা জানান।

সোমবার থেকে এক সপ্তাহের লকডাউনের ঘোষণার পর বিকেল থেকেই মানুষ রাজধানী ছাড়তে বাস টার্মিনালগুলো ও সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে ভিড় করছেন।

হানিফ পরিবহনের মহাব্যবস্থাপক মোশাররফ হোসেন জানান, দুপুরের পর থেকে বিপুল সংখ্যক যাত্রী গাবতলীতে জড়ো হয়েছেন।

তিনি বলেন, আমাদের ৫০ শতাংশ আসন ফাঁকা রাখতে বলা হয়েছিল। তবে, যাত্রীদের চাপে আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হচ্ছি।

মহাখালী বাস টার্মিনালের বাস মালিক সমিতির সভাপতি আবুল কালাম জানান, বিকেলে যাত্রীদের সংখ্যা কিছুটা বেড়েছে এবং তাদের বেশিরভাগই আজকের টিকিট কিনেছেন।ধারণা করছি আগামীকাল যাত্রীদের চাপ আরও বাড়বে।

সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে গিয়েও ঢাকা ছাড়তে উদগ্রিব মানুষের ভিড়ে দেখা যায়। বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষের যুগ্ম-পরিচালক (ঢাকা নদী বন্দর) জয়নাল আবেদীন মনে করেন, রাতে বা কাল থেকে চাপ শুরু হবে।

এদিকে লকডাউনের ঘোষণার পরপরই রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে মানুষ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য কিনতে বাজারে ভিড় করছে। কেউ কেউ একসঙ্গে বাড়তি পরিমাণ পণ্য কিনে ঘরে ফিরছেন।

বাজারে ভিড় বাড়তে শুরু করে বেলা দুইটার পর থেকে। রাজধানীর অন্যতম বড় তিন বাজার মোহাম্মদপুরের টাউন হল, হাতিরপুল ও কারওয়ান বাজারে ক্রেতাদের বাড়তি ভিড় দেখা যায়। বেশির ভাগ মানুষ সংসারের জন্য প্রয়োজনীয় পণ্য—চাল, ডাল, তেল, পেঁয়াজ ও আলু কিনছিলেন।

লকডাউনের খবর শুনেই ক্রেতারা প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনতে বাজারে আসছেন। তবে ক্রেতা ও বিক্রেতাদের কেউ কেউ বলছেন, একদিকে মাসের প্রথম শনিবার, অন্যদিকে সামনের সপ্তাহ থেকে রোজা। অনেকেই মাসের ও রোজার বাজার একসঙ্গে করছেন। তাই ক্রেতা কিছুটা বেশি।

কারওয়ান বাজারের সরকারি অফিসগুলোতে শনিবার সাপ্তাহিক ছুটি। তারপরও ভিড় অন্যান্য ছুটির দিনের তুলনায় বেশি দেখা যায়।

দেশে প্রথম করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে গত বছরের ৮ মার্চ। এরপর ২৬ মার্চ থেকে সাধারণ ছুটি শুরু হয়। তখন সাধারণ ছুটির আগে বাজারে ব্যাপক ভিড় হয়েছিল। এতে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দামও বেশ বেড়ে যায়। এ বছর চাল, ডাল, তেল, চিনিসহ বিভিন্ন নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম আগে থেকেই চড়া।