আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

শাহজাদপুরে ইউপি চেয়ারম্যান থেকে শত কোটি টাকার মালিক সাইফুল ইসলাম!

news-image

নামেই তিনি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান। এ পুঁজি ব্যবহার করে গত দশ বছরে তিনি শতকোটি টাকার মালিক বনে গেছেন। সুদের ব্যবসা দিয়ে শুরু, এরপর কি করেননি তিনি। নানা ধরনের প্রতারণা, নদী দখল করে সেখান থেকে বালু উত্তোলন, সরকারী বিভিন্ন প্রকল্পে দুর্নীতির মাধ্যমে অর্থ আত্মসাৎ, সরকারি এবং বেসরকারি মালিকানার জমি দখলসহ নানা অপকর্মের সাথে জড়িয়ে পড়েছেন তিনি। সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুর উপজেলার গাঁড়দাহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম। দুর্নীতি দমন কমিশন ইতিমধ্যে বিষয়টি তদন্ত শুরু করেছে।
দুর্নীতি দমন কমিশনের পাবনা আঞ্চলিক অফিসের সহকারী পরিচালক আতিকুর রহমান ইতিমধ্যে বিষয়টি দুদকের প্রধান কার্যালয়ে জানিয়েছেন। দুদকের অভিযোগপত্রে দেখা যায়, গাঁড়াদহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম মক্তবে পড়াশোনার পাঠ চুকিয়ে পুরোদস্তুর মাদক ব্যবসায়ী বনে যান। এতে স্থানীয় প্রভাবশালীদের সাথে তার উঠাবসা শুরু হয়।
প্রভাবশালীরাই তাকে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বানিয়ে নিজেদের স্বার্থ হাসিল করতে থাকেন। চেয়ারম্যান হবার পর সাইফুল ইসলাম এলাকায় প্রতিরাতে জুয়ার আসর বসিয়ে বিপুল অর্থ ভাগিয়ে নেন। এছাড়া মাদক ব্যবসা, সুদের ব্যবসা, নানান ধরনের ঠিকাদারি, ভূমি দখলের মতো কর্মকা-ে তিনি জড়িয়ে পড়েন। তাঁর দৃশ্যমান বিভিন্ন ব্যবসায় শত শত কোটির মালিকানা মিললেও আয়কর বিবরণীতে তাঁর প্রমাণ পাওয়া যায় না।
দুদকে পাওয়া অভিযোগপত্রে দেখা যায়, সাইফুল ইসলাম মাদক ব্যবসার সাথে সরাসরি জড়িত। ২০১৮ সালে তাঁর গ্রাম মশিপুর মাদকের ক্ষেত্রে শীর্ষস্থান অর্জন করে। প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়ন প্রকল্প একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প থেকে তিনি ঘর প্রতি ৫০ থেকে ৭০ হাজার টাকা করে নিয়েছেন। এছাড়া তিনি করতোয়া নদীর তালগাছি, নরিনা এবং গাড়াদহ প্রান্ত থেকে প্রতিনিয়ত বালু উত্তোলন করে যাচ্ছেন। প্রশাসনের পক্ষ থেকে একাধিকবার অভিযান চালানো হলেও সাইফুল ইসলাম আবারো তার অপকর্ম বজায় রাখেন।
দুদকের অভিযোগপত্রে সাইফুল ইসলামের সম্পদের বিশদ বিবরণ দেয়া হয়। এতে বলা হয়, উত্তরবঙ্গের নামকরা গরুর হাট তালগাছিতে বাজারের জায়গা দখল করে তিনি মার্কেট বানিয়েছেন। এর ফলে হাটটি একেবারে সংকীর্ণ হয়ে পড়েছে। মনিপুর এবং পুরাণ টেপরিতে তাঁর নিজের নামে চারটি ইটভাটা রয়েছে। অন্যান্য অঞ্চলেও তার নামে রয়েছে একাধিক ইটের ভাটা।
সাইফুল ইসলাম পরিবহন ঠিকাদারি ব্যবসার সাথেও জড়িত। নামে বেনামে তার অন্তত: ৪০টি ট্রাক রয়েছে। বিভিন্ন ট্রান্সপোর্টেও তার বেনামে বিনিয়োগ রয়েছে। বঙ্গবন্ধু সেতুর দুইপ্রান্তে তাঁর নামে জমি রয়েছে। এছাড়া তিনি নিজ ইউনিয়নে কয়েক কোটি টাকা খরচ করে গড়ে তুলেছেন গরুর খামার। সিরাজগঞ্জ-হাটিকুমরুল হাইওয়েতে ফুট ভিলেজের পাশে তার কয়েক কোটি টাকা দামের জমি রয়েছে। এছাড়া তিনি একটি চট মিলের মালিক বলে জানা গেছে।
এসব বিষয় নিয়ে সাইফুল ইসলামের সাথে কথা বলতে তাঁর মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, নানা ধরনের ঝামেলার কারণে তিনি পলাতক রয়েছেন। দুদকের অভিযোগ সম্পর্কে তিনি বলেন, নির্বাচনকে সামনে রেখে একটি পক্ষ তাঁর বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে।
তবে দুদকের একজন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, সাইফুল ইসলামের অবৈধ সম্পদ অর্জনের বিষয়টির প্রমাণ মিলেছে। শিগগিরই তদন্ত শেষ করে এ বিষয়ে রিপোর্ট দেয়া হবে।

এ জাতীয় আরও খবর

ঈশ্বরদী রূপপুর পারমাণবিক প্রকল্প পরিদর্শনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

রিমান্ড শেষে কারাগারে রাগীব আহসান

বিদ্যালয়ের জমি বেদখল, দোকানের ছাদে পাঠদান

স্বর্ণালঙ্কারের জন্য খুন করা হয় সাবেক প্রধান শিক্ষককে

দুই ট্রেন মুখোমুখি, অল্পের জন্য রক্ষা পেলেন কয়েকশ যাত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে জাতিসংঘের ‘এসডিজি অগ্রগতি পুরস্কার’ প্রদান

মানিকগঞ্জের শিবালয়ে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষাবৃত্তি ,উপকরণ ও বাইসাইকেল বিতরণ

ময়মনসিংহে পাচারের সময় ভিজিডির ৮৪ বস্তা চাল জব্দ

কয়েক সেকেন্ডেই তালা খোলে চক্রটি, টার্গেট কর্পোরেট অফিস

প্রতারণার ফাঁদে ফেলে শতাধিক গাড়ি চুরি, দুই প্রতারক গ্রেফতার

মিরপুরে এসএসসির ডুপ্লিকেট সার্টিফিকেট, আতংকে শিক্ষার্থীরা

করোনায় আরও ২৬ জনের মৃত্যু