আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

শিবগঞ্জে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘরে অনেকেই থাকেন না, ঘর পেয়েছেন স্বচ্ছল ব্যক্তিরাও

news-image

প্রধানমন্ত্রীর উপহার আশ্রয়ণ প্রকল্পের বগুড়ার শিবগঞ্জে পৃথক দুই স্থানে বরাদ্দ পাওয়া ঘরে অনেকেই বসবাস করছেন না। এমনকি সচ্ছল ব্যক্তিদের নামে ঘর বরাদ্দ দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার আটমূল ইউনিয়নের কঞ্চিথল গ্রামে আশ্রয়ণ প্রকল্পের নির্মাণের ২৭টি ঘর ২৭ব্যক্তির নামে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

জানা যায়, ১২ঘরের লোকজন নিয়মিত বসবাস করছেন। ১০টি ঘরের লোক মাসে ২-১দিন এলেও কিছু সময় অপেক্ষা করে চলে যান। ৫টি ঘর প্রথম থেকেই পরিত্যক্ত অবস্থায় আছেন। তারা কেউ আসে না। অভিযোগ উঠেছে ওই ৫টি ঘর সচ্ছল ব্যক্তিদের নামে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। তাদের মধ্য ২জনের নাম পাওয়া গেছে। তারা হলেন কঞ্চিথল গ্রামের ছোড়াব উদ্দিন ও আব্দুল অলিম। তাদের পাকা বাড়ি ও ফসলি জমিও আছে। আলিম বর্তমানে বিদেশে কর্মরত আছেন। ছোরাব উদ্দিন জানান, আমার বাড়ি ও জমি আছে সত্যি। তবে কৌশল করে আশ্রয়নের ঘর পেয়েছি। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান বেলাল হোসেন বলেন, আমার পূর্বের চেয়ারম্যানের আমলে ঘরগুলো বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। শুনেছি যারা ঘরে থাকে না তারা অনেকেই মধ্যবিত্ত ও ধনী পরিবারের ব্যক্তি । কীভাবে তারা ঘর পেলেন আমার জানার বাহিরে। উপজেলার পিরব ইউনিয়নের ভাটরা গ্রামে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ২০টি ঘর ২০ব্যক্তির নামে বরাদ্দ দেওয়া হয়। সরজমিনে জানা যায় ১০টি ঘরে লোকজন বসবাস করছেন। বাকি ১০টি ঘর পরিত্যক্ত আছে। পরিত্যক্ত ঘর গুলোর সামনে বিভিন্ন জাতের গাছ ও ঘাস জন্ম নিয়ে জঙ্গলে পরিণত হয়েছে। স্থানীয়রা জানান, ঘরগুলো বরাদ্দ পাওয়ার প্রথম দিকে ৫-৬দিন লোকজন ঘরে ছিল। তারপর থেকে কেউ থাকে না।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আশিক মাহমুদ মিলটন জানান, পূর্বের চেয়ারম্যানের আমলে ঘরগুলো বরাদ্দ দেওয়া হয়। ১০ঘরে কেউ থাকে না বিষয়টি সত্যি। কারণ তাদের হয়তো নিজস্ব আশ্রয়ের ব্যবস্থা আছে। ঘরগুলো তারা কাউকে ভাড়া দেওয়া কিংবা বিক্রি করার জন্যই হয়তো কৌশলে ঘর বরাদ্দ নিয়েছে। কঞ্চিথল ও ভাটরা আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘরগুলো হস্তান্তরের বিষয়ে উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা জিন্দার আলীর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করলে তাকে পাওয়া যায়নি। উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা মোছাঃ উম্মে কুলসুম শম্পা জানান, আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর বরাদ্দ পাওয়ার পরেও যারা থাকেন না কিংবা যদি কোন স্বচ্ছল ব্যক্তির নামে ঘর বরাদ্দ দেওয়া থাকে সে বিষয়টি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের মাধ্যমে তালিকা নেওয়া হবে এবং তদন্ত করে বরাদ্দ বাতিলের ব্যবস্থা নেওয়া হবে। পরে প্রকৃত দরিদ্র আশ্রয়হীনদের তালিকা করে ঘর বরাদ্দ দেওয়া হবে।

এ জাতীয় আরও খবর

পদ্মা সেতু: শিল্পের জন্য প্রস্তুত গোপালগঞ্জ

এখন যানবাহনের অপেক্ষায় ফেরি

ফেরিতে পাঁচ ভাগের এক ভাগে নেমে এলো ছোট গাড়ি

বাঁশখালীতে বিদ্যুৎকেন্দ্রে বিস্ফোরণ

মানিকগঞ্জে পদ্মা সেতুর লাইভ অনুষ্ঠানে অস্ত্র নিয়ে মহড়া, সাংবাদিক গ্রেপ্তার

উল্লাসে মেতেছে পদ্মা পাড়ের মানুষ

চার মাস না যেতেই উঠছে ৯ কোটি টাকার সড়কের পিচ

পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষ্যে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর পিঠা উৎসব

নদী ভাঙা মানুষের বিলাপ

সাঁতরে মঞ্চে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলল কিশোরী

বঙ্গবন্ধুর শ্রেষ্ঠ উপহার স্বাধীনতা, আর প্রধানমন্ত্রীর শ্রেষ্ঠ উপহার পদ্মা সেতু : পাট ও বস্ত্রমন্ত্রী

সেতুর উদ্বোধনে ফায়ার সার্ভিসের শোভাযাত্রা