আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

সাধ ও সাধ্যের সমন্বয়ে জমে উঠেছে নারায়ণগঞ্জের ঈদবাজার

news-image

নুরুল আজিজ চৌধুরী নারায়ণগঞ্জ : আসন্ন ঈদুল ফিতর ঘনিয়ে আসার সাথে সাথে নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন বিপনীবিতানে জমে উঠেছে কেনা-কাটা। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে কেনাবেচা। সাধ এবং সাধ্যের সমন্বয় ঘটিয়ে নিজের এবং পরিবারের জন্য পছন্দের পোশাক কিনছেন ধনী-গরীব সব শ্রেণি-পেশার মানুষ।
তবে নিন্ম ও নিন্ম মধ্যবিত্তদের পছন্দের তালিকায় রয়েছে ফুটপাত। তাদের মতে, মার্কেটের ভেতর গিয়ে চড়া দামে জিনিস কেনার সামর্থ নেই। কিন্তু মার্কেটের ভেতরের দোকানের দামের চেয়ে কম দামে একই জিনিস ফুটপাতে পাওয়া যায়। ফলে মার্কেটগুলোর পাশাপাশি ফুটপাতেও উপচে পড়া ভীড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে।
গত দুই বছর করোনার কারণে নানা বিধিনিষেধ থাকায় আশানুরূপ ব্যবসা করতে পারেননি দোকানিরা। এবার রাষ্ট্রীয় কোনো বিধিনিষেধ না থাকায় বিপনীবিতানের পাশাপাশি কেনাবেচায় ধুম পড়েছে ফুটপাতের দোকানগুলোতে।
মঙ্গলবার (২৬ এপ্রিল) ক্রেতাদের পদচারণায় সরগরম দেখা যায় নগরের ফ্যাশন হাউজ ও বিপনীবিতানগুলোতে। শহরের সমবায় মার্কেট, মার্ক টাওয়ার, প্যানোরমা প্লাজা, লুৎফা টাওয়ার, হক প্লাজা, সায়াম প্লাজা, বেইলি টাওয়ার, শান্তনা মার্কেট, এফ রহমান সুপার মার্কেট ও আল জয়নাল ট্রেড সেন্টারে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভীড়। সেই সাথে নি¤œ ও মধ্য বিত্তের কেনাকাটা চলছে ফুটপাতে। সাধ্যের মধ্যে ঈদের পোশাক কিনছেন ক্রেতারা। নগরীর বিভিন্ন সড়কের ফুটপাতে ক্রেতাদের অস্বাভাবিক ভীড়।
শান্তনা মার্কেটের শীতল শাড়ি হাউজ থেকে শাড়ি কিনেছেন স্মৃতি বেগম। তিনি ঈদের কেনাকাটা অভিজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, ঈদের সময় যত এগিয়ে আসবে ততই ভিড় বাড়বে। আজ গিফট দেওয়ার জন্য কিছু কাপড় কিনতে এসেছিলাম। ভেবেছিলাম রাতে ঝামেলা কম হবে। রাতেও দেখি অনেক ভিড়।
জয়নাল প্লাজা থেকে শার্ট ক্রয় করেছেন আনোয়ারুল ইসলাম। তিনি বলেন, দুটো শার্ট কেনার জন্য এসেছিলাম। কিন্তু বেশি দাম বলায় একটি কিনেছি। কয়েকটা দোকান ঘুরে মনে হলো, কাপড়ের দাম অন্য বছরের তুলনায় বেশি মনে হচ্ছে। দুই বছরের টা একবারে পুষিয়ে নিচ্ছে বিক্রেতারা।
কালিবাজারের শায়েস্তাখান সড়কের পাশে পোশাকের পসরা সাজিয়ে বসেছেন প্রায় অর্ধশতাধিক বিক্রেতা। সেখানে মেয়ের জন্য লাল রঙের জামা বাছাই করছেন লিপি বেগম। কিন্তু দামে না হওয়ায় অন্য দোকানে এগিয়ে যান। তার সাথে কথা হলে তিনি বলেন, মেয়ের বাবা গার্মেন্টেসে কাজ করে। মার্কেটের থেকে জামা কিনে দেওয়ার সামর্থ্য নেই। ফুটপাতের জামা কাপড়ের দামও অনেক অনেক বাড়ায় বাড়ায় রাখে। পছন্দ হলে দামে হয়না। দেখি যেমন সামর্থ্য তা দিয়েই কিছু কিন্না দিমু।
মার্ক টাওয়ার মার্কেটের বিক্রেতা শফিক বলেন, রমজানের শেষের দিকে বেচাকেনা বেশি হয়। গত দুই বছরের তুলনায় বেচাকেনা মোটামুটি ভালো। ১০ রোজার পর থেকে এখন ভালো বিক্রি হচ্ছে।
এসব বিপনিবিতানের পাশাপাশি আড়ং, লারিভ, কান্ট্রিবয়, রং, টপ টেন, টপ মার্ট দেশীদশ, রং বাংলাদেশসহ একাধিক ব্রান্ডের শোরুমে জমজমাট কেনা বেচা চলছে।
আড়ং এ ঈদের কেনাকাটা করতে আসা কনিকা আক্তার মনে করেন, জিনিসপত্রের দাম বেশ চড়া। তিনি বলেন গত বছর যে ধরনের জামা ১ হাজার টাকার কিনেছি এখন ২ হাজার টাকা দাম চাচ্ছে। যে থ্রি পিসটা ঈদের আগে আগে আড়াই হাজার টাকায় পাওয়া যেত সেটা এখন চাচ্ছে ৩৫০০ টাকা। বুঝেন অবস্থা!
নারায়ণগঞ্জ জেলা দোকান মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক এম এ শাহেদ শাহীন এ বছরের নারায়ণগঞ্জের ঈদের বাজারের সার্বিক অবস্থা জানিয়ে বলেন, গত দুই বছর ব্যবসায়ীরা এক প্রকার সংকটকাল কাটিয়েছে।
দুই বছরের স্থবিরতা কাটিয়ে এবার ব্যবসা কিছুটা স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরেছে। করোনার কারণে দুই বছর ঈদে তেমন বিক্রি হয়নি। এ বছর বিক্রি শুরু হয়েছে। আগের চেয়ে ক্রেতা সমাগম বেড়েছে। তবে দুই বছর পর যেমন বিক্রির আশা করেছিলাম, তেমন হচ্ছে না।

এ জাতীয় আরও খবর

নারায়নগঞ্জে ৪১৪ জন শিক্ষককের আড়াই কোটি টাকা হাতিয়ে নিলেন জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শরিফুল ইসলাম

দৌলতদিয়ায় ৭ ফেরিঘাটের ৪টিই বিকল, যানবাহনের দীর্ঘ সারি

পানির নিচে পন্টুন, ঘাটে যানবাহনের দীর্ঘ সারি

ছাত্রদল করা সন্তানের জনক হলেন থানা ছাত্রলীগের সহসভাপতি

যমুনা নদীতে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন

চাঁদপুরের ডিসিকে বদলি, তিন জেলায় নতুন ডিসি

গাফফার চৌধুরী আর নেই

প্রধান শিক্ষিকার বিরুদ্ধে ভূমি দখলের পাঁয়তারার অভিযোগ

কুমিল্লার মানবজমিন প্রতিনিধিসহ সারাদেশের সাংবাদিকদের উপর হামলার প্রতিবাদে সোচ্চার রূপগঞ্জ প্রেসক্লাব ॥ প্রতিবাদ সভা, মানববন্ধন-বিক্ষোভ মিছিল

চাকরির নামে টাকা আত্মসাৎ গ্রেপ্তার ২

মহাসড়কে গাছ ফেলে ডাকাতি করতো তারা, গ্রেফতার ৬

বনের ভেতর সিসা তৈরির কারখানা, হুমকির মুখে পরিবেশ