আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

হরিরামপুরে ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্ত শুরু

news-image

মানিকগঞ্জের হরিরামপুর উপজেলা ফায়ার সার্ভিস স্টেশন কর্মকর্তা বিজন বিশ্বাসের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগের ঘটনায় তার বিরুদ্ধে বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্ত শুরু করেছে কর্তৃপক্ষ।

বুধবার ফায়ার সার্ভিসের ঢাকা বিভাগের উপপরিচালক দেবাশীষ বর্ধন অভিযোগের বিষয়ে তদন্তে আসেন।

হরিরামপুর ফায়ার সার্ভিস স্টেশন এবং স্থানীয় ব্যবসায়ী সূত্রে জানা গেছে, গত মঙ্গলবার দুপুরে সদর উপজেলার বালিরটেক বাজারে যান হরিরামপুর উপজেলায় কর্মরত ফায়ার সার্ভিস স্টেশন কর্মকর্তা বিজন বিশ্বাস।

বিভিন্ন দোকানে ফায়ার লাইন্সের কথা বলে বাজারের কয়েকজন ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে চাঁদা দাবি করেন। এ সময় তাদেরকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের ভয়, জরিমানা ও শাস্তির হুমকি দেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে ওই কর্মকর্তার সঙ্গে কয়েকজন ব্যবসায়ীর কথা কাটাকাটিও হয়।

এ সময় ওই ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তার কথাবার্তায় সন্দেহ হলে ব্যবসায়ীরা মানিকগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস কার্যালয়ে যোগাযোগ করেন। ব্যবসায়ীরা এ সময় ব্যবসায়ীরা তাকে আটকে রাখেন।

বালিরটেক বাজার বণিক সমিতির সভাপতি মো. রাজা মিয়া বলেন, আটকের পর ওই কর্মকর্তাকে বাজারের পাশে অবস্থিত স্থানীয় ভাড়ারিয়া ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে যাওয়া হয়। খবর পেয়ে সেখানে আসেন মানিকগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের উপসহকারী পরিচালক শরিফুল ইসলাম। পরে এই ঘটনায় তিনি সকলের কাছে দুঃখ প্রকাশ করে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার অঙ্গীকার করে সেখান থেকে ছাড়িয়ে নিয়ে যান।

স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা গেছে, ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা বিজন বিশ্বাসের বিরুদ্ধে হরিরামপুর উপজেলার ঝিটকা, আন্ধারমানিক, বলড়া, পিপুলিয়া, কাণ্ঠাপাড়াসহ উপজেলার বিভিন্ন বাজারে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে চাঁদা দাবির অভিযোগ রয়েছে। ফায়ার লাইন্সের কথা বলে তিনি ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে চাঁদা দাবি করতেন।

ব্যবসায়ীদের অভিযোগের বিষয়ে বুধবার সন্ধ্যায় বিজন বিশ্বাসের মুঠোফোনে একাধিকবার কল করা হলে তা বন্ধ পাওয়া যায়। এ কারণে অভিযোগের বিষয়ে তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

এদিকে মানিকগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের উপসহকারী পরিচালক শরিফুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, বিজন বিশ্বাসের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ পাওয়ায় তার বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে। বুধবার ফায়ার সার্ভিসের ঢাকা বিভাগের উপপরিচালক দেবাশীষ বর্ধন অভিযোগের বিষয়ে তদন্তে আসেন। তিনি বালিরটেক বাজারের ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলেছেন।

তদন্তে অভিযোগের প্রমাণ পেলে অভিযুক্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে যথাযথ বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান।