আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

হাজার বেদের মাঝে ইদ উপহার

news-image

বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে চলাচল সীমিত করায় বিপদে পড়েছেন অনেকে। তাদের মধ্যে আছেন অসহায়, সুবিধাবঞ্চিত, কর্মহীন নানান পরিবার। তাদেরই দুঃখ কষ্ট দেখে নিরবে কেঁদেছেন কেউ কেউ। আবার তাদেরই পাশে দাঁড়াতে সাহায্য ও সহযোগিতা নিয়ে এগিয়ে এসেছেন অনেকে। তাদের মধ্যে একজন সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী এস এম নাঈমুল হাসান। সিলেটের বেদেপল্লীতে কর্মহীন মানুষদের দুঃখ কষ্ট দেখে নিজ উদ্যোগে গড়ে তুলেছেন স্বেচ্ছাসেবী টিম ‘প্রজেক্ট ৬০’।

করোনা মহামারীর প্রথম ধাপে সারা দেশব্যাপী ছড়িয়ে থাকা বেদে পল্লীগুলাতে খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দেওয়ার উদ্দেশ্যেই তৈরি হয়েছিলো এই প্রজেক্ট। বর্তমানে বেদে পরিবারের সাথে ঈদুল ফিতরের আনন্দ ভাগাভাগি করতে কাজ করে যাচ্ছে টিমটির সদস্যরা। বেদেদের মধ্যে ইদের আনন্দ ছড়িয়ে দিতে রমজান মাসের ২১ তারিখে ফেসবুকে ইভেন্ট খুলে অর্থ সংগ্রহ করেছেন নাঈমুল। সংগ্রহকৃত অর্থ দিয়ে ক্রয় করেছেন ইদ উপহার সামগ্রী। সেই উপহার পৌঁছে দিয়েছেন দেশের বিভিন্ন বেদে পল্লীতে।

ঢাকা জেলায় ৪৯টি পরিবার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় ২৩টি পরিবার, ঝালকাঠি জেলায় ৪২টি পরিবার, রংপুর জেলায় ২৫টি পরিবার, ময়মনসিংহ জেলায় ৭০টি পরিবার ও সিলেটের কুলাউড়ায় ১৫টি পরিবারসহ সর্বোমোট ২২৪টি পরিবারের প্রায় এক হাজার বেদের মাঝে ইদ উপহার সামগ্রী পৌঁছে দিয়েছেন প্রজেক্ট ৬০ এর সদস্যরা। প্রজেক্ট ৬০ এর ইদ উপহার পেয়ে খুশিতে মেতে উঠেন বেদে শিশুরা।

প্রজেক্ট ৬০ এর সমন্বয়ক এস এম নাঈমুল হাসান বলেন, গতবছর লকডাউনের সময় প্রজেক্ট ৬০ সারা দেশের ২১ টি বেদে পল্লীতে টানা ১০০ দিনের খাদ্যসামগ্রী উপহার দেয়। এরই প্রেক্ষিতে এবারে ইদ উপহার বিতরণ করেছি আমরা।

“আমাদের দেশের বেদে সম্প্রদায় অবহেলিত এবং সমাজ বঞ্চিত। প্রজেক্ট ৬০ সারা দেশের বেদে সম্প্রদায়ের জন্যে এক ভরসার স্থল হয়ে উঠবে একদিন। অন্তত প্রজেক্ট ৬০ এর হাত ধরে বেদে পল্লীর এই মানুষগুলো একটু ভালো থাকার চেষ্টা করতে পারবে এমনটাই আশা করেন তিনি।”