আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

হেফাজতের হরতালে যান চলাচল কম, সতর্ক আইনশৃঙ্খলা বাহিনী

news-image

মোদিবিরোধী বিক্ষোভে পুলিশ ও সরকার সমর্থকদের বাধার ফলে সৃষ্ট ত্রিমুখী সংঘর্ষে নেতাকর্মী নিহত ও আহত হওয়ার প্রতিবাদে হেফাজতে ইসলামের ডাকা সকাল-সন্ধ্যা হরতাল চলছে।

রবিবার সকাল থেকে রাজধানীতে গণপরিবহন ও ব্যক্তিগত গাড়ি চলাচল করতে দেখা গেছে। তবে তা অন্য কার্যদিবসের চেয়ে কম।

রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ মোড় এবং অলিগলির মুখে পুলিশ সদস্যদের অবস্থান নিতে দেখা গেছে। এছাড়া টহলে রয়েছেন পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যরা।

এদিকে হরতাল ঘিরে যেকোনো পরিস্থিতি এড়াতে পুলিশ ও র‌্যাবকে কঠোর ও সতর্ক থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

ইতোমধ্যে পুলিশ সদর দপ্তর থেকে পুলিশের সবকটি রেঞ্জের ডিআইজি, পুলিশ সুপার ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের কাছে নির্দেশনা পাঠিয়ে বলা হয়েছে. পরিবেশ কেউ অশান্ত করার চেষ্টা করলে কঠোরভাবে দমন করতে হবে। থানাসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাগুলোতে নিরাপত্তা বাড়াতে বলা হয়েছে।

হরতালে বিশৃঙ্খলা করলেই অ্যাকশনে যেতে বলা হয়েছে বলে পুলিশ সূত্র দেশ রূপান্তরকে জানিয়েছে।

পুলিশ সদর দপ্তরের এক কর্মকর্তা বলেন, হরতালে বিশৃঙ্খলা করলেই কঠোর অ্যাকশনে যাবে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলো। রাষ্ট্রের স্বার্থে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফর ঘিরে প্রতিবাদে নেমে পুলিশ ও সরকার সমর্থকদের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন ইসলামি দলগুলোর নেতাকর্মীরা। জুমার নামাজের পর বায়তুল মোকাররম মসজিদ এলাকায় সংঘর্ষ শুরু হয়। এ ঘটনায় অর্ধশতাধিক আহত হন।

এ ঘটনার প্রতিবাদে চট্টগ্রামের হাটহাজারী ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিক্ষোভ মিছিল বের করলে পুলিশের সঙ্গে হেফাজত নেতাকর্মী ও সমর্থকদের সংঘর্ষ হয়। এতে হাটহাজারীতে চারজন আর ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় একজন নিহত হন।

শনিবার বিকেলেও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিজিবি ও পুলিশ এবং আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের সঙ্গে হেফাজত নেতাকর্মীদের সংঘর্ষ হয়। এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে কমপক্ষে পাঁচজন নিহত হন।