আমরা নিরপেক্ষ নই আমরা সত্যের পক্ষে

‘২০১৯ সালের চেয়ে ক্ষতিকর প্রকৃতির ডেঙ্গুতে আক্রান্তের ৯৫ ভাগই রাজধানীর’

news-image

রাজধানীতে বেড়েই চলেছে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা। চলতি বছর আগস্টেই সর্বোচ্চ সাড়ে সাত হাজার আক্রান্ত হয়েছেন। আর ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ২শ’ ৩৩ জন। ডেঙ্গুর নতুন ধরন ডেনভি থ্রি’তে দ্রুত খারাপ হচ্ছে রোগীর অবস্থা। চিকিৎসকরা বলছেন, এ ধরনে আক্রান্তদের প্লেটলেট অনেক কমে যাওয়ার পাশাপাশি রক্তক্ষরণ হওয়ায় দুর্বল হয়ে পড়ছেন রোগীরা।
ঢাকা শিশু হাসপাতালের বর্হিবিভাগের সামনে শত শত রোগীর অপেক্ষা। ডেঙ্গুর উপসর্গ থাকায় সন্তানদের নিয়ে ছুটে এসেছেন উদ্বিগ্ন অভিভাবকরা।
ডেঙ্গু ওয়ার্ডে গিয়ে দেখা যায় ফাঁকা নেই কোনো শয্যা। রাজধানীর অন্যান্য হাসপাতালের চিত্র একই রকম। বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদের তথ্যমতে, মোট রোগীর ৯৫ ভাগই রাজধানীর। যাদের বেশিরভাগই ক্ষতিকর ধরন ডেনভি-থ্রিতে আক্রান্ত হচ্ছে। প্লেটলেট দ্রুত কমে যাওয়া, রক্ত ক্ষরণ, রক্তচাপ হঠাৎ পড়ে যাওয়ায় রোগী দুর্বল হয়ে যাচ্ছে আশঙ্কাজনকভাবে।
ঢাকা শিশু হাসপাতালে ৫ বছর বয়সী সন্তানকে চিকিৎসা দিতে নিয়ে আসা এক বাবা জানান, আগের দিন রাত থেকে প্রচণ্ড জ্বর। ১০৩ থেকে ১০৫ ডিগ্রি (ফারেনহাইট) পর্যন্ত উঠেছে তার বাচ্চার জ্বর।
হাসপাতালে ভর্তি এক শিশুর অভিভাবক জানান, ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হওয়ার তার সন্তানের রক্তের প্লেটলেট এক লাখ ৩৬ হাজার থেকে কমে সোমবার দাঁড়িয়েছে এক লাখ ২০ হাজার।
হাসপাতালটিতে ভর্তি অধিকাংশ শিশুই শারীরিকভাবে দূর্বল পাশাপাশি কমে গেছে তাদের রক্তের চাপও।
হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. আর্শিয়া জানান, ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীদের রক্তের চাপ, প্রসাব কমে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আরও নানা ধরনের জটিলতা দেখা দিচ্ছি।
তিনি বলেন, ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর চাপ অনেক। ২০১৯ সালের তুলনায় এবছর ডেঙ্গুর ভয়াবহতা আরও মারাত্মক বলেও জানান এই চিকিৎসক। তিনি বলেন, ডেঙ্গুতে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতেই রয়েছে শিশুরা।
চিকিৎসকরা বলছেন, ২০১৯ সালের চেয়েও এবার ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে ডেঙ্গু। জ্বর, বমি বা অন্য উপসর্গ তিনদিনের বেশি স্থায়ী হলে অবশ্যই ডেঙ্গু পরীক্ষার পরামর্শ তাদের।
ঢাকা শিশু হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল কর্মকর্তা ডা. নুরুজ্জামান বলেন, জুলাই মাসের তুলনায় আগস্ট মাসে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দ্বিগুনের কাছাকাছি। বহির্বিভাগ ও জরুরি বিভাগে প্রতিদিন প্রায় ৪০ থেকে ৫০ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী আমরা পাচ্ছি। ডেঙ্গুর লক্ষণগুলোর মধ্যে জ্বর থাকবে, সেই সঙ্গে বমি ও কালো পায়খানা শুরু হবে, পেটে ব্যথা থাকবে। এধরনের লক্ষণ দেখা দিয়ে দ্রুত রোগীকে নিয়ে হাসপাতালে আসতে হবে।
নগরবাসীকে সচেতন থাকার তাগিদ চিকিৎসকদের।

এ জাতীয় আরও খবর

পদ্মা সেতু: শিল্পের জন্য প্রস্তুত গোপালগঞ্জ

এখন যানবাহনের অপেক্ষায় ফেরি

ফেরিতে পাঁচ ভাগের এক ভাগে নেমে এলো ছোট গাড়ি

বাঁশখালীতে বিদ্যুৎকেন্দ্রে বিস্ফোরণ

মানিকগঞ্জে পদ্মা সেতুর লাইভ অনুষ্ঠানে অস্ত্র নিয়ে মহড়া, সাংবাদিক গ্রেপ্তার

উল্লাসে মেতেছে পদ্মা পাড়ের মানুষ

চার মাস না যেতেই উঠছে ৯ কোটি টাকার সড়কের পিচ

পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষ্যে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর পিঠা উৎসব

নদী ভাঙা মানুষের বিলাপ

সাঁতরে মঞ্চে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলল কিশোরী

বঙ্গবন্ধুর শ্রেষ্ঠ উপহার স্বাধীনতা, আর প্রধানমন্ত্রীর শ্রেষ্ঠ উপহার পদ্মা সেতু : পাট ও বস্ত্রমন্ত্রী

সেতুর উদ্বোধনে ফায়ার সার্ভিসের শোভাযাত্রা